ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

রাত পোহালেই মহালয়া! তর্পণ সম্পর্কে কয়েকটি তথ্য জেনে নিন

প্রথমবার্তা ডেস্ক, রিপোর্টঃ      এ যেমন তেমন ভোর নয়। এ হল সেই ভোর যেদিন অলস বিছানায় ঘুম ভাঙে রেডিওর আওয়াজে। হয়ত রেডিও ছেড়ে পাশে হেডফোন নিয়ে ঘুমনোর অভ্যেস হয়েছে। তাতে কি আর পুজোর গন্ধ যায়? এ যে দেবীপক্ষ। পুজো তো তবে শুরু!

 

 

 

 

 

 

 

তবে শুধু বীরেন্দ্র কৃষ্ণের ভদ্রের কণ্ঠই নয়, মহালয়ার মানে আরও অনেক কিছু। পিতৃতর্পণে অনেকেই শুরু করেন দেবীপক্ষ। হিন্দুধর্ম মতে, পিতৃপক্ষ পূর্বপুরুষের তর্পণের জন্য এক বিশেষ পক্ষ মহালয়া। এই পক্ষ পিত্রুপক্ষ, ষোলা শ্রাদ্ধ, কানাগাত, জিতিয়া, মহালয়া পক্ষ ও অপরপক্ষ নামেও পরিচিত।

 

 

 

 

 

 

 

যেহেতু পিতৃপক্ষে শ্রাদ্ধ, তর্পণ ইত্যাদি মৃত্যু-সংক্রান্ত আচার-অনুষ্ঠান পালিত হয়, সেহেতু এই পক্ষ শুভকাজের জন্য নয় বলেও মনে করা হয়।

 

 

 

 

 

 

তর্পণ কেন?

হিন্দু পুরাণ অনুযায়ী, জীবিত ব্যক্তির পূর্বের তিন পুরুষ পর্যন্ত পিতৃলোকে বাস করেন। স্বর্গ ও মর্ত্যের মাঝামাঝি অবস্থিত এ লোক। পিতৃলোকের শাসক মৃত্যুদেবতা যম। তিনিই সদ্যমৃত ব্যক্তির আত্মাকে মর্ত্য থেকে পিতৃলোকে নিয়ে যান। পরবর্তী প্রজন্মের একজনের মৃত্যু হলে পূর্ববর্তী প্রজন্মের একজন পিতৃলোক ছেড়ে স্বর্গে গমন করেন এবং পরমাত্মায় লীন হয়ে যান। এই প্রক্রিয়ায় তিনি শ্রাদ্ধানুষ্ঠানের ঊর্ধ্বে উঠে যান। এই কারণে, কেবলমাত্র জীবিত ব্যক্তির পূর্ববর্তী তিন প্রজন্মেরই শ্রাদ্ধানুষ্ঠান হয়ে থাকে।

 

 

 

 

 

 

 

আবার মহাভারত অনুযায়ী, দাতা কর্ণের মৃত্যু হলে তাঁর আত্মা স্বর্গে গমন করলে, তাঁকে স্বর্ণ ও রত্ন খাদ্য হিসেবে প্রদান করা হয়। কর্ণ ইন্দ্রকে এর কারণ জিজ্ঞাসা করলে ইন্দ্র বলেন, কর্ণ সারা জীবন স্বর্ণই দান করেছেন, তিনি পিতৃগণের উদ্দেশ্যে কোনোদিন খাদ্য প্রদান করেননি। তাই স্বর্গে তাঁকে স্বর্ণই খাদ্য হিসেবে প্রদান করা হয়েছে। কর্ণ বলেন, তিনি যেহেতু তাঁর পিতৃগণের সম্পর্কে জানতেন না, তাই তিনি ইচ্ছাকৃতভাবে পিতৃগণকে স্বর্ণ প্রদান করেননি। এই কারণে কর্ণকে ষোলো দিনের জন্য মর্ত্যে গিয়ে পিতৃলোকের উদ্দেশ্যে অন্ন ও জল প্রদান দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। এই পক্ষই পিতৃপক্ষ নামে পরিচিত হয়।

 

 

 

 

 

 

 

তর্পণ কোথায়?

মহালয়ার দিন পিতৃপুরুষের শ্রাদ্ধ অনুষ্ঠিত হয় দ্বিপ্রহরে নদী বা হ্রদের তীরে বা শ্রাদ্ধকর্তার বাড়িতে। অনেক পরিবার বারানসি বা গয়ায় গিয়ে শ্রাদ্ধানুষ্ঠান করেন।

 

 

 

 

 

 

 

খাদ্য:

পূর্বপুরুষকে যে খাদ্য উৎসর্গ করা হয়, তা সাধারণত রান্না করে রুপো বা তামার পাত্রে কলাপাতার উপর দেওয়া হয়। এই খাদ্যগুলি হল ক্ষীর, ভাত, ডাল, গুড় ও কুমড়ো।

Lead News এর আরও খবর
Translate »