১২ নভেম্বর ২০১৭, রবিবার

চিটাগং ভাইকিংসে ১৮ রানে হারিয়ে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিল খুলনা

প্রথমবার্তা ডেস্ক, রিপোর্টঃ চলতি বিপিএল আসরের প্রথম ম্যাচে ঢাকা ডায়নামাইটসের কাছে বড় ব্যবধানে হেরেছিল খুলনা টাইটান্স। পরের ম্যাচে সিলেটকে ৬ উইকেটে উড়িয়ে দেয় তারা।

 

 

 

 

তৃতীয় ম্যাচে চিটাগং ভাইকিংসে ১৮ রানে হারিয়ে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছে মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদের দল। অথচ একটা সময় মনে হচ্ছিল, রিয়াদের দল ১০০ রান করতে পারে কিনা সন্দেহ! সেখান থেকে দলকে নেতার মতই পথ দেখালেন মাহমুদ উল্লাহ। বিপিএলের গত আসরে নবীন দল হিসেবে কোয়ালিফায়ারে খেলেছিল খুলনা। চলতি আসরে এবার হয়তো শুরু হল মাহমুদ উল্লাহর ম্যাজিক্যাল জার্নি।

 

 

 

 

 

আজ রবিবার দিনের প্রথম খেলায় খুলনার দেওয়া ১৭১ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই দুই ওপেনারকে হারায় চিটাগং। আবু জায়েদের করা প্রথম ওভারের তৃতীয় এবং চতুর্থ বলে লুক রনচি (২) এবং সৌম্য সরকার বাজে শট খেলে প্রায় একইভাবে আউট হন। এনামুল হক বিজয় এবং মুনারাবিরা হাল ধরার চেষ্টা করেন। কিন্তু ১০ রান করে আবু জায়েদের তৃতীয় শিকার হন মুনারাবিরা। ১৮ রান করা এনামুলকে ফেরান ব্র্যাথওয়েট।

জিম্বাবুয়ের পাকিস্তানি বংশোদ্ভুত ক্রিকেটার সিকান্দার রাজাকে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর মিশনে নামেন অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হক। ২৭ বলে ৩৭ রান করা সিকান্দার রাজাকে বোল্ড করে প্রতিরোধ ভাঙেন শফিউল। এরপরই আবু জায়েদের চতুর্থ শিকার হন ৩৭ বলে ৩০ রান করা চিটাগং অধিনায়ক মিসবাহ। খেলাটা মূলতঃ তখনই শেষ হয়ে যায়। বাকী সময়টুকু ছিল নিয়মরক্ষা মাত্র। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৬২ রান তুলতে সক্ষম হয় মিসবাহর দল।

 

 

 

 

 

এর আগে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে টসে হেরে ব্যটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৭০ রান সংগ্রহ করে খুলনা টাইটানস। কিন্তু ব্যটিংয়ে নেমেই মহাবিপদে পড়েছিল মাহমুদ উল্লাহর দল। দলীয় ৬ রানেই সানজামুলের বলে সৌম্য সরকারের তালুবন্দি হন চ্যাডউইক ওয়লটন (৫)। ৭ রানের ব্যবধানে লিঙ্গারকে (২) বোল্ড করে দ্বিতীয় শিকার ধরেন সানজামুল। দলীয় ২৯ রানে অপর ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত (৯) মুনারাবিরার শিকার হন।

 

 

 

 

এমন মহাবিপদের সময় দলের হাল ধরেন অধিনায়ক মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ এবং রুশো। রুশোকে (২৫) ফিরিয়ে মঞ্চে আবির্ভাব ঘটে আগের ম্যাচে বল হাতে ঝড় তোলা তাসকিন আহমেদের। ৩৩ বলে ২টি করে চার-ছক্কায় ৪০ রান করা খুলনা অধিনায়ক মাহমুদ উল্লাহকেও এনামুলের ক্যাচে পরিণত করেন তাসকিন।

 

 

 

 

 

ততক্ষণে অবশ্য খুলনার ইনিংস দাঁড়িয়ে গেছে। আরিফুল হকের সঙ্গে জুটি বাঁধা ব্র্যাথওয়েট ১৪ বলে ৩০ রানের ঝড় তুলে শুভাশীষ রায়ের বলে বোল্ড হয়ে যান। ২৫ বলে ১ বাউন্ডারি আর ৪ ওভার বাউন্ডারিতে ৪০ রান করা ২৪ বছর বয়সী আরিফুল ইনিংসের শেষ বলে তাসকিনের তৃতীয় শিকার হন। টানা দুই ম্যাচে তরুণ স্পিডস্টার ঝুলিতে পুরেছেন৩ উইকেট।

You must be logged in to post a comment Login



মতামত

প্রতিদিনের সর্বশেষ সংবাদ পেতে

আপনার ই-মেইল দিন

Delivered by FeedBurner