প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :               সম্পর্কের মধ্যে জড়িয়ে ধরা গুরুত্বপূর্ণ, এটি আপনাকে নিরাপত্তা এবং সুরক্ষার অনুভূতি দেয়। সেই মতো, শয়নকালে জড়িয়ে ধরা গুরুত্বপূর্ণ। কোন ধরনের শারীরিক যোগাযোগ মানুষকে শিথিল করে তোলে এবং তাদের দৈনিক জীবনের উত্তেজনা হ্রাস করে।

 

 

 

 

 

যদি আপনি ও আপনার সঙ্গী ঘুমানোর সময় জড়িয়ে ধরেন, তাহলে এটি অন্তরঙ্গতা বজায় রাখতে সহায়তা করে এবং আপনাকে স্বাচ্ছন্দ্য প্রদান করে। আমরা শারীরিক ঘনিষ্ঠতা ভালোবাসি তাই এটি আপনাদের বন্ধন শক্তিশালী করে তোলে।

 

 

 

 

 

 

এক ভালো ঘুমের জন্যে নিরাপত্তার অনুভূতি আবশ্যক। যেভাবে আপনি ও আপনার সঙ্গী ঘুমান তা দেখে আপনাদের কি সম্পর্ক তা বলা যায়।

 

 

 

 

 

১। হানিমুন আলিঙ্গন

মধুচন্দ্রিমা আলিঙ্গন এক গভীর একে অপরের সাথে শারীরিক ভাবে সংযুক্ত থাকার প্রয়োজনীয়তা নির্দেশ করে। প্রায় সব নববিবাহিত দম্পতি এই ভঙ্গিতে ঘুমায়। গভীর প্রেম ও একে অপরের ওপর মানসিক এবং শারীরিক নির্ভরতা অনুভব করে।

 

 

 

 

 

২। স্পুন

দম্পতিদের সবচেয়ে সাধারণ শোওয়ার ভঙ্গি। যে সমস্ত দম্পতি ৩-৪ বছর আগে বিয়ে করেছে তারা এই ভঙ্গিতে শোয়। এই অবস্থানটি মানে নারীরা তার সঙ্গীকে বেশি সুবিধা দিচ্ছে এবং তার সঙ্গীর বিশেষ যত্নের প্রয়োজন।

 

 

 

 

এই অবস্থান আরো শারীরিক ঘনিষ্ঠতা নিশ্চিত করে। এটা আপনার ঘনিষ্ঠ এবং নিরাপদ অবস্থানের অনুভূতি দেয়। এটাকে সব আলিঙ্গনের রাজা বলা হয়।

 

 

 

 

৩। সুইটহার্ট আলিঙ্গন

সুইটহার্ট আলিঙ্গন হল আরও ঘনিষ্ঠ কদম যেখানে মেয়েটির মাথাটি সহজভাবে তার সঙ্গীর কাঁধে থাকে। এটি আপনাকে নিরাপত্তার এবং সুরক্ষার ধারণা দেয়। এই অবস্থান দেখায় যত্নশীল এবং অন্তরঙ্গ অবস্থান। প্রারম্ভিক পর্যায়ে দম্পতি এই অবস্থানে ঘুমায়।

 

 

 

 

 

 

৪। জেন স্টাইল

এই অবস্থান সেই সব দম্পতিদের যারা দীর্ঘ সময় থেকে একসাথে রয়েছে। সময়ের সাথে মানুষের স্বাধীনতা এবং ব্যক্তিগত স্থান প্রয়োজন। এই অবস্থানটি সংযুক্তি এবং স্বাধীনতার মধ্যে একটি আপস।

 

 

 

 

 

৫। মুখোমুখি

ঘুমের সময় এমন অবস্থানে থাকে যেখানে আপনার মুখ একে অপরের দিকে তাকিয়ে থাকে যাতে আপনার সঙ্গীকে সারা রাত দেখতে পারেন। এর ফলে বেশি অন্তরঙ্গতা দেখায় এবং দৃঢ় সম্পর্ক গড়ে তোলে।

 

 

 

 

৬। ইয়দা

যখন কোন মহিলা তার সঙ্গীকে নিরাপদ এবং সুরক্ষিত করার চেষ্টা করে, তখন সে এই অবস্থানে ঘুমায়। কখনও কখনও, পুরুষেরও এই অনুভূতি প্রয়োজন।

 

 

 

 

 

 

৭। ক্লাসিক ক্লিফহ্যাঙ্গার

সঙ্গীদের মধ্যে কোন শারীরিক যোগাযোগ নেই কারণ এটি পরস্পরের পিছনের অবস্থান। এর মানে আপনি এখন নিরাপদ এবং একে অপরের সাথে আরামদায়ক শারীরিক স্পর্শের কোন প্রয়োজন নেই। অন্য দিকে, এই অবস্থানটি আপনাকে এবং আপনার সঙ্গীর মধ্যে দূরত্বের বর্ণনা করে।

 

 

 

 

৮। ফ্যাবিও

ফ্যাবিও ভঙ্গি রোমান্টিক উপন্যাস বইয়ের কভার ছবির মত, যেখানে উভয়ই একে অপরকে ধরে রাখে। এটা আপনাকে জ্বলন্ত আবেগের অনুভুতি দেয়।

 

 

 

 

 

 

৯। হলিও

প্রণয়ঘটিত দম্পতিদের প্রিয় আলিঙ্গন এটি। এটা দম্পতির সত্য ভালবাসা এবং একে অপরের প্রতি বিশ্বস্ত দেখায়। এই অবস্থানটি পুরুষ সঙ্গীদের আধিপত্যকে নির্দেশ করে কারণ সে তার সঙ্গীকে নিরাপদ ভঙ্গিতে জড়িয়ে থাকে।

 

 

 

 

 

 

১০। শিংগল

শিংগেলস একটি রাজকীয় ভঙ্গি যা দেখায় যে উভয় সঙ্গীদের শক্তিশালী ব্যাক্তিগত ব্যক্তিত্ব রয়েছে। উভয় সঙ্গী চিৎ হয়ে ঘুমায় এবং বিশ্ব দেখতে একই দৃষ্টিকোণ থাকতে পারে।

 

 

 

 

 

এটি দেখায় যে মহিলা আরো বেশি বোঝাপড়ার মধ্যে থাকে পুরুষ সঙ্গীর থেকে এবং দুজনের মধ্যে বন্ধনের সেতু তৈরি করে। এই ভঙ্গি একে অপরের মধ্যে সমতা এবং একটি উচ্চ স্তরের বিশ্বাস দেখায়।

 

 

 

 

 

 

১১। গিঁট

গিঁট অবস্থান যেখানে আপনাদের পায় একে ওপরের সাথে জড়িয়ে থাকে। এই অবস্থানটি আপনাদের ২ জনের এত ঘনিষ্ঠভাবে বর্ণনা করেছেন যে আপনি জানেন না যে আপনি কোথায় শুরু করেছেন এবং তিনিই বা কোথায় শেষ করেছেন।

 

 

 

 

 

১২। আয়না

মিরর অবস্থান যেখানে আপনি একে অপরের দিকে কোণঠাসা হয়ে থাকেন এবং একে অপরকে স্পর্শ করবেন না। বিবাহিত দম্পতিরা এবং দীর্ঘমেয়াদী সম্পর্কযুক্ত মানুষেরা এইরকম ভঙ্গিতে ঘুমায় কারণ তাদের এখন দৃঢ় বন্ধন রয়েছে এবং তাদের যত্ন প্রকাশ করার জন্যে এই ধরনের কোন ভঙ্গির প্রয়োজন নেই।