কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার আজগরা ইউনিয়নের দুই সন্তানের জননী এক প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত গৃহবধূর নাম আম্বিয়া বেগম (৩৮)। সে নাওটি গ্রামের মৃত আব্দুল লতিফের ছেলে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী রবিউল হোসেনের স্ত্রী এবং নাঙ্গলকোট উপজেলার পেরিয়া ইউনিয়নের শালুকিয়া গ্রামের মৃত আলী আহাম্মদের মেয়ে।

 

শনিবার (২৬ মে) রাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেল সড়কের আশকামতা নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। লাকসাম রেলওয়ে থানা পুলিশ নিহত ওই নারীর কাটা মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে নিহত আম্বিয়ার দেবর অভিযুক্ত মজিবুল হক ও তার স্ত্রী পরভীন বেগম পালাতক রয়েছে।

 

 

নিহতের ভাই ই¯্রাফিল খাঁন জানান, আমার বোন আম্বিয়ার স্বামী রবিউল হোসেন দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী। পারিবারিক অর্থসম্পত্তি নিয়ে দেবর মজিবুল হক ও তার স্ত্রী পরভীন বেগমের সাথে বিরোধ ছিল। এসব কারণে তারা আমার বোনকে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার জন্য তার লাশ রেল লাইনে পেলে রাখে। আমার বোনের নিহত আম্বিয়ার একটি মেয়ে ও একটি বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ছেলে রয়েছে। যারা আমার বোনকে হত্যা করেছে আমি তাদের বিচার চাই।

 

 

লাকসাম রেলওয়ে থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আতাউর রহমান জানান, উপজেলার আশকামতা নামক স্থানে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেল সড়কের উপর এক নারীর কয়েক টুকরো লাশ পড়ে থাকার খবর আমাদেরকে স্থানীয়রা জানায়। খবর পেয়ে রাত আনুমানিক সাড়ে ৯টা ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই নারীর ১০ টুকরো লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। প্রাথমিকভাবে দেখা যায় তিনি ট্রেনে কাটা পড়েছেন। তবে মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ণয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।