প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:  নোয়াখালীর বসিরহাট চৌধুরীহাটের মৃত সিরাজুল হকের চতুর্থ ছেলে মোঃ আব্দুল মান্নান (৪৪)। ১৯৯৯ সালে ভাগ্যের চাকা ঘোরাতে বিদেশে গিয়ে উচু বিল্ডিং এর সেলিং থেকে নিচে পরে নিজেই এখন সংসারের পঙ্গু মানুষ হয়ে পড়ে আছেন।

 

 

 

 

 

পঙ্গুত্ব জীবনে আবেগঘন কণ্ঠে ভাঙ্গা ভাঙ্গা ভাবে বললেন, ঘরে বৃদ্ধ বাবা-মা পাঁচ ভাইবোনের সংসারের মুখের হাসি ফোটাতে ১৯৯৯ সালে গিয়েছিলাম আবুধাবিতে ভাগ্যের চাকা ঘোরানোর আশায়। বেশ ভালই চলছিল আমার বিদেশ জীবন। দির্ঘ ১৯ বছরের প্রবাস জীবনে যা উপার্যন করেছিলাম সবটুকু বিলিন হয়ে যায় ২০১৭ সালের ১২ ডিসেম্বর।

 

 

 

 

 

 

আবুধাবির বিভিন্ন বিল্ডিংয়ে ইলেকট্রিক মিস্ত্রি হিসাবে কাজ করতাম। প্রতিদিনের ন্যায় ২০১৭ সালের ১২ ডিসেম্বর একই ভাবে কাজ করছিলাম। হঠাৎ করে সেলিং ভেঙে আমি ৩০০ ফিট নিচে পড়ে যায়।

 

 

 

 

শরীলের মেরুদন্ড সহ বেশ কয়েকটি হাড়-গোড় সম্পূর্ণ ভেঙে পঙ্গুত্ব অবস্থায় পড়ে থাকতে হয় দীর্ঘ ৫ মাস বিদেশের হাসপাতালের বেডে। যা কিছু কামাই করেছিলাম বিদেশের মাটিতে সবই বিদেশের মাটিতে চিকিৎসার জন্য ব্যয় করে রেখে আসতে হল।

 

 

 

 

 

সবিশেষ চলতি মাসের ২১ শে মে ২০১৮ তারিখে আবুধাবির কোম্পানি আমাকে বাংলাদেশ পাঠিয়ে দিয়েছে। চিরতরের পঙ্গুত্ব জীবন নিয়ে দেশের মাটিতে এসে আমি বড় অসহায় হয়ে পড়ে আছি ।

 

 

 

 

 

চিকিৎসার সামর্থ্য নাই বর্তমানে আমার কাছে। আমার সংসারে ২ ছেলে ১ মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি।

 

 

 

 

নিজের চিকিৎসার জন্য সমাজের বৃত্তবানদের কাছে সাহায্য আবেদন করেন মোঃ আব্দুল মান্নানের স্ত্রী ফাতিমা আক্তার।

 

 

 

 

 

চিকিৎসা সাহায্য টাকা পাঠানোর ঠিকানা সোনালী ব্যাংক, নোয়াখালী, চৌধুরীহাট শাখা, অনলাইন একাউন্ড নং – 3808301006893.