প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:    ছবি মুক্তি পেলে ভালো ব্যবসা করবে। এই ঈদে সেটা হওয়ার কথাই ছিল—‘চিটাগাইঙ্গা পোয়া নোয়াখাইল্লা মাইয়া’, ‘সুপার হিরো’ ও ‘ভাইজান এলো রে’।

 

 

 

 

 

একটা গোষ্ঠী ষড়যন্ত্র করে ‘ভাইজান এলো রে’ মুক্তির পথ বন্ধ করে দিয়েছে। অন্যদিকে ‘সুপার হিরো’র বিরুদ্ধে মামলা করে আটকে দিয়েছে। কী লাভ হলো! শাকিব খান সম্প্রতি সাক্ষাৎকারে এ মন্তব্য করেন।

 

 

 

 

শাকিব বলেন, ঈদকে কেন্দ্র করে সারা দেশে অন্তত ১০০ হল চালু হয়। সব মিলিয়ে হলের সংখ্যা থাকে ৩০০ থেকে ৪০০। আমার একটি ছবি দিয়ে কি হলগুলো চলতে পারবে?

 

 

 

 

 

গত দুই বছর ধরে ইন্ডাস্ট্রিতে শাকিব হটাও মিশন চলছে। আমার অপরাধ কী? যেসব প্রযোজক-পরিচালক এই ষড়যন্ত্রের মূল হোতা তাদের প্রত্যেককে আমিই ডেকে এনে কাজ দিয়েছি। টাকা না থাকলেও ছবি শেষ করে দিয়েছি। এটাই কি আমার ভুল ছিল!

 

 

 

 

 

 

এই অভিনেতা বলেন, এবারের ঈদ নিয়ে আমি দারুণ আশাবাদী ছিলাম। তিনটি ছবিই ছিল তিন রকমের। দর্শক তুষ্ট হতো। এই ছবিগুলো মুক্তি না পাওয়ায় আমার যতটুকু ক্ষতি হলো তার চেয়ে বেশি ক্ষতি হলো ইন্ডাস্ট্রির! নতুন যারা বাংলা ছবি দেখতে শুরু করেছিল, তাদেরও তাড়িয়ে দেওয়া হলো।

 

 

 

 

 

 

অভিনয় কমিয়ে দিয়েছেন মন্তব্য করে শাকিব বলেন, এমনিতেই আমি এখন অভিনয় কমিয়ে দিয়েছি। বছরে সর্বোচ্চ পাঁচ-ছয়টি ছবি করি। টার্গেট থাকে দুই ঈদ আর পহেলা বৈশাখ।

 

 

 

 

 

 

 

এখন সেটাও তো হতে দিচ্ছে না। আমাকে যদি অবসর নিতে বলা হয়, আমি রাজি। কিন্তু আমার উত্তরসূরি কি তৈরি?