প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:   রাঙামাটির পাহাড়ী এলাকায় টানা বর্ষণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। বিভিন্ন স্থানে মাটি ধ্বসের খবর পাওয়া যাচ্ছে। টানা বর্ষণে সড়ক ও পাহাড়ে ধস, ফাটল এবং গাছ উপড়ে পড়ার ঘটনায় আতংক ছড়িয়ে পড়েছে পার্বত্য শহর রাঙামাটিতে।

 

 

 

 

শহরের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ধস, ফাটল এবং গাছ ও বিদ্যুতের পিলার উপড়ে পড়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। পাহাড়ধসের আশঙ্কায় পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসরত লোকজনদের নিরাপদ স্থানে সরে যাওয়ার জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হচ্ছে।

 

 

 

 

 

শহরের চম্পকনগর, শিমুলতলি, ভেদভেদি ও কলেজ গেইট এলাকায় মাটি ভেঙে পড়েছে। ঘাগড়ার শালবন এলাকায় রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে মাটিধসে পড়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে এসব ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কেউ হতাহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

 

 

 

 

 

 

জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ বলেন, আমাদের সকল ধরনের প্রস্তুতি আছে। আশ্রয় কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে। যেভাবে বৃষ্টিপাত হচ্ছে যেকোনো সময় পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটতে পারে তাই সকলকে দ্রুত সময়ের মধ্যে নিরাপদ স্থানে সরে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

 

 

 

 

ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক দিদারুল আলম জানিয়েছেন, শহরের চম্পকনগর, আনসার ক্যাম্প এলাকা, উন্নয়ন বোর্ড এলাকাসহ বেশ কয়েকটি স্থানে সড়ক ও ভবনের পাশের মাটি সরে পড়া, সড়কের উপর গাছ উপড়ে পড়ার ঘটনা ঘটেছে। গাছ কেটে সড়িয়ে নেওয়ায় এখন সড়ক যোগাযোগ স্বাভাবিক আছে।

 

 

 

 

 

রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশীদ বলেছেন, ‘ শহরবাসীর অবস্থা পর্যবেক্ষণ এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে আমার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং কর্মকর্তা কর্মচারীরা সকাল থেকেই রাত অবধি মাঠেই আছে।

 

 

 

 

 

 

 

আমি নিজেও রাতে বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছি। মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমরা সর্বোচ্চ পদক্ষেপ নেব।’