প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:     তারেক রহমানের সাথে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের লন্ডনে বৈঠকের সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

 

 

 

 

 

 

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে বাজেট বক্তৃতায় তিনি বলেন, একজন সাজাপ্রাপ্ত আসামির সাথে শুধু বৈঠকই করেননি, ভুরিভোজও করেছেন। ওখানে বসে কী ষড়যন্ত্র করেছেন তা খতিয়ে দেখতে হবে।

 

 

 

 

 

একজন সাজাপ্রাপ্ত পালাতক আসামির সাথে সাক্ষাত করায় আইনের ব্যতয় ঘটে কি না? সেটা খতিয়ে দেখে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।

 

 

 

 

 

খালিদ বলেন, আগামী নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী। নির্বাচন করবে নির্বাচন কমিশন, সেদিকে মনোযোগী না হয়ে বিএনপি এখন বিদেশিদের কাছে ধর্ণা দিচ্ছে। তারা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। বিদেশিদের কাছে বাংলাদেশ-বিরোধী প্রচারণা চালাচ্ছে।

 

 

 

 

 

খালিদ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আল্লাহর নাম নিয়ে দেশ স্বাধীন করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, এ দেশকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাআল্লাহ।

 

 

 

 

 

এদেশে ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন বঙ্গবন্ধু। তার হাত ধরেই বিশ্ব ইসলামী সংস্থা ওআইসির সদস্য পদ লাভ করে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার পর পরই এদেশে মদ-জুয়া বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

 

 

 

 

 

 

তিনি বলেন, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারও ইসলাম ধর্মের প্রচারে সচেষ্ট। এদেশে একটা সময় মসজিদভিত্তিক শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। আওয়ামী লীগ সরকার আবার তা চালু করেছে।

 

 

 

 

 

আওয়ামী লীগ সব সময় কোরআন-সুন্নাহবিরোধী আইন পাসের বিপক্ষে। আওয়ামী লীগই মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড পুনর্গঠন করেছে, আলেম ওলামাদের দীর্ঘ দিনের দাবি ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে।

 

 

 

 

 

ঈদে মিলাদুন্নবী, শবে-কদর, শবে-বরাত উপলক্ষে সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে। ইসলাম প্রচারে তাবলীগ জামায়াতের পৃষ্ঠপোষকতা করেছে।

 

 

 

 

মাদ্রাসা শিক্ষাকে আধুনিক করেছে আওয়ামী লীগ। ক্বাওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের প্রচলিত সনদের সমমানের মর্যাদাও দিয়েছে বর্তমান সরকার। ইমাম-মুয়াজ্জিন কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করা হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী ও সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্যদের ধন্যবাদ জানান।

 

 

 

 

 

দ্বিতীয় পদ্মা সেতুতে উত্তরবঙ্গকে সংযুক্ত করার আহ্বান জানিয়ে ভবিষ্যত উন্নয়নে উত্তরবঙ্গকে আরো বেশি সম্পৃক্ত করার দাবি জানান তিনি।