প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:      রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইসলামিয়া কলেজ কেন্দ্রের মাঠে অবস্থান নিয়েছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের ওই কেন্দ্রে ভোটারের তুলনায় বেশি ভোট পড়েছে অভিযোগ করে নির্বাচনী কর্মকর্তাদের কাছে ব্যালট পেপারের হিসাব দাবি করেছেন তিনি।

 

 

 

 

 

এ সময় বুলবুল বলেন, গৃহস্থের ঘরে ডাকাত পড়েছে। গণতন্ত্রের দাম নাই। যে কারণে আমার ভোটেরও কোনো দাম নাই। তাই আমি ভোটও দেব না। ভোট শেষ হওয়া পর্যন্ত আমি এখানে অবস্থান ধর্মঘট পালন করব। জাতির কাছে, প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের বিবেকের কাছে, তাদের সন্তান ও আত্মীয় স্বজনের কাছে আমার প্রশ্ন, জাতিকে আজ কোন দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে?

 

 

 

 

 

 

নির্বাচন বর্জন করবেন কিনা জানতে চাইলে বিএনপির এই মেয়র প্রার্থী বলেন, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। ফলে নির্বাচন বর্জন করব না।

 

 

 

 

 

 

সোমবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরুর পর থেকে সিলেটের বিভিন্ন কেন্দ্রে ঘুরতে থাকেন বুলবুল। নগরীর স্যাটালাইট টাউন হাই স্কুল কেন্দ্রে ভোট দেওয়ার কথা থাকলেও তিনি তা দেননি।

 

 

 

 

এরপর ইসলামিয়া কলেজ কেন্দ্রে মেয়র পদের ব্যালট পেপার দেওয়া হচ্ছে না- এমন খবর পেয়ে ওই কেন্দ্রে ছুটে যান তিনি। কেন্দ্রের ভেতরে ঘুরে এসে কলেজের মাঠে ঘাসের ওপর বসে পড়েন ধানের শীষ প্রতীকের এই প্রার্থী।

 

 

 

 

 

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, এই কেন্দ্রে বাক্সে ভোটার সংখ্যার চেয়ে বেশি ভোট পড়েছে। ব্যালট পেপার ফুরিয়ে যাওয়ায় এখন অন্য কেন্দ্র থেকে ব্যালট এনে ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে।

 

 

 

 

 

আমি ১১টার দিকে এ কেন্দ্রে এসে বের করে দেওয়া আমার পোলিং এজেন্টদের নিয়ে প্রিজাইডিং কর্মকর্তার রুমে ঢুকি। ওই রুম থেকে বলা হয়, দুইটা বুথে ১০০ ব্যালট রয়েছে। ২২৪৮টি ভোটের মধ্যে মেয়র পদের বাকি ভোট দেওয়া হয়ে গেছে।

 

 

 

 

 

এ সময় নির্বাচন কর্মকর্তাদের কাছে ব্যালটের হিসাব দাবি করেন বুলবুল। তিনি বলেন, কী পরিমাণ ভোটার রয়েছে এবং কী পরিমাণ ভোট পড়েছে- এসব তথ্য না দেওয়া পর্যন্ত আমি উঠব না।

 

 

 

 

 

বিএনপি প্রার্থীর এসব অভিযোগের বিষয়ে ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার আবদুল্লাহ আল শাফি বলেন, ধানের শীষ প্রতীকের সাতজন পোলিং এজেন্টের লিস্ট দেওয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে একজনের সই ছিল না। বাকিদের ঢুকতে দেওয়া হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

ব্যাটল পেপার শেষ হয়ে যাওয়ায় মেয়র পদে ভোটগ্রহণ বন্ধের অভিযোগ বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ভোট ঠিকমতো চলছে।