প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:        বিজয়ের হাসি হাসছেন আরিফুল হক চৌধুরীআর মাত্র ৯০ ভোট পেলেই সিলেট সিটি করপোরেশন নিজের করে নিতে পারবেন বিএনপির প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী।

 

 

 

 

 

রিটার্নিং কর্মকর্তার ভাষ্য অনুযায়ী, স্থগিত দুটি কেন্দ্রের ৪ হাজার ৭৮৭ ভোট থেকে ৯০টি ভোট জিততে হবে তাকে। সিলেটের মোট ১৩৪টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৩২টির ভোটের ফল শেষে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের চেয়ে ৪ হাজার ৬শ’ ২৬ ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন তিনি।

 

 

 

 

 

সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) নির্বাচনে ১৩২টি কেন্দ্র থেকে পাওয়া বেসরকারি ফলে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৯০ হাজার ৪৯৬ হাজার ভোট।

 

 

 

 

 

অপরদিকে নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান পেয়েছেন ৮৫ হাজার ৮৭০ ভোট। এর ফলে কামরানের চেয়ে ৪ হাজার ৬শ’ ২৬ ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন তিনি। যে দুটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত রেখেছে নির্বাচন কমিশন সেখানে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ হাজার ৭৮৭।

 

 

 

 

 

 

সোমবার শেষ বিকালে ফল ঘোষণার শুরুতেই পিছিয়ে পড়েন কামরান। ইভিএম কেন্দ্রগুলোর ঘোষিত ফলে তো বটেই নির্বাচনে নিজ কেন্দ্রেই পিছিয়ে যান তিনি।

 

 

 

 

 

তার কেন্দ্র সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের এ প্রার্থী পেয়েছেন ৬৪৬ ভোট। আর বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৭৭৬ ভোট। এ কেন্দ্রে ১৩০ ভোটের ব্যবধানে বিএনপি প্রার্থীর কাছে পিছিয়ে পড়েন তিনি।

 

 

 

 

 

রিটার্নিং অফিসের কার্যালয়ে ফল ঘোষণা শেষে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, ‘৩৬০ আউলিয়ার সিলেটের পুণ্যভূমিতে কেউ অন্যায় ও কারচুপি করে পার পায় না।

 

 

 

 

 

এই ফল তার প্রমাণ।’ তিনি আরও বলেন, ‘শুরু থেকেই বিজয়ী হবো বলে আশাবাদী ছিলাম। দিনে ভোটকেন্দ্র দখল, কারচুপি ও অনিয়মের কারণে কিছুটা শঙ্কিত ছিলাম।

 

 

 

 

তবে যদি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হতো তাহলে লক্ষাধিক ভোটে জয়লাভ করতাম।’ সব বাধা ও ভয়ভীতি উপেক্ষা করে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেওয়ার জন্য তিনি সিলেটবাসীকে অভিনন্দন জানান।

 

 

 

 

 

 

এদিকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ সাংবাদিকদের বলেন, ‘এজেন্টের মাধ্যমে আমরা যে ফলাফল পেয়েছি তাতে ১০ হাজার ভোটে এগিয়ে ছিলাম। কিন্তু রিটার্নিং কর্মকর্তার ঘোষণায় ভিন্ন ফল শুনতে পারলাম।’