প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:       ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এখনও সিরিজ শেষ হয়নি বাংলাদেশের। তবে ক্যারিবীয় দ্বীপ ছেড়েছেন তামিম ইকবাল আর মোস্তাফিজুর রহমানরা। কারণ, টি-টোয়েন্টি সিরিজর অবশিষ্ট দুই ম্যাচ হবে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার লডারহিলের সেন্ট্রাল ব্রোয়ার্ড রিজিওনাল পার্কে।

 

 

 

 

 

 

এই মাঠটি কিন্তু সাকিব আল হাসানের ঘরের মাঠই। স্ত্রী উম্মে আহমেদ শিশিরের এখানেই বেড়ে উঠেছেন, জন্মসূত্রে মেয়ে আলায়না হাসান অব্রিও এখানকার নাগরিক। শুধু কি তাই? বিশ্বসেরা বাংলাদেশি অলরাউন্ডার সাকিবও এখন যুক্তরাষ্ট্রের গ্রীনকার্ডধারী।

 

 

 

 

 

এবার শ্বশুরবাড়িতে খেলা, এমন প্রশ্নে সাকিবের ভাষ্য, ‘শুধু শ্বশুরবাড়ি না, নিজেরও বাড়ি’। হাঁ সত্যি বলেছেন তিনি। কিছু দিন আগে ‘গ্রিনকার্ডে’র জন্য আবেদন করেছিলেন সাকিব। সেটি পেয়েও গেছেন। ‘ভবিষ্যতে ও দেশে থাকব কি না বলতে পারি না। যেহেতু নিয়মিত যাতায়াত করতে হয়, ভোগান্তি এড়াতে নিয়ে রাখলাম’।

 

 

 

 

 

আগামী ৪ ও ৫ আগস্ট ফ্লোরিডায় সিরিজের শেষ দুটি টি-টোয়েন্টি খেলবে বাংলাদেশ। কেমন করবে বাংলাদেশ? এমন প্রশ্নে সাকিব বলেন, ‘সিপিএলে আমি অনেকগুলো ম্যাচ খেলেছি ওখানে।

 

 

 

 

 

অভিজ্ঞতা বলে, মন্থর উইকেট হতে পারে, যেটি আমাদের অনুকূলে কাজ করতে পারে। ১৫০-১৬০ রানের বেশি হয় না সাধারণত। তবে অনেক দিন পর খেলা, নতুন উইকেট থাকবে।

 

 

 

 

 

 

১৮০-১৯০ রানও হতে পারে। যেমন ভারতের বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজ করেছে (২০১৬ সালের আগস্টে ভারতের ২৪৪ টপকে গিয়েছিল)। এমনিতে খুব একটা উইকেট হাই স্কোরিং ম্যাচ হয় না। আশা করব, সিপিএলের উইকেটের মতো যেন থাকে।’