প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:       জনপ্রিয় অভিনেত্রী শামা সিকান্দার। খুব শীঘ্রই ইউটিউবে ‘অব দিল কি শুন’ সিরিজ নিয়ে হাজির হচ্ছেন তিনি। আর এই সিরিজের সমাজের অন্ধকার দিকগুলো তুলে ধরা হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

এর আগে ২০১৬ সালে ‘সেক্সহোলিক’ নামের একটি শর্ট ফিল্মে দেখা গিয়েছিল আবেদনময়ী এ অভিনেত্রীকে। সেই শর্ট ফিল্মে শামার চরিত্রটি নিয়ে তীব্র বিতর্ক হয়।

 

 

 

 

বিতর্কের কারণ? বড়লোক বাড়ির এক গৃহিণী তার স্বামীর কাছে স্বীকারোক্তি দেন, গত ৭ মাসে আমি অন্তত ২০ জন পুরুষের সঙ্গে যৌন সম্পর্কে জড়িয়েছি। আর সেই গৃহিণীর চরিত্রেই দেখা গিয়েছিল শামাকে। বিক্রম ভট্টের ওয়েব সিরিজ ‘মায়া’-তে আবার এক সমকামীর চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন শামা সিকান্দার।

 

 

 

 

 

 

আর তখনই সেই বিতর্ক নিয়ে সংবাদমাধ্যমকে শামা বলেন, যৌনতাকে আমাদের সমাজে খুবই খারাপভাবে দেখা হয়। সবাই কিন্তু অজ্ঞানে আর সজ্ঞানে সেটাই করে চলেছে। দেশের জনসংখ্যাও বেড়ে চলেছে বিপুলভাবে। তাও যৌন দৃশ্য দেখলেই লোকজন মুখ বেঁকাবেন।

 

 

 

 

 

তিনি আরো বলেন, আমদের থেকে বড় হিপোক্রিট এই বিশ্বে আর কোথাও আছে? এখানেই থেমে না থেকে আরেকটু যোগ করে বললেন, যৌনতা খুব সুন্দর একটা বিষয়। গোপন না করে আসুন বিষয়টার সম্মুখীন হই।

 

 

 

 

 

আর সিনেমার মধ্যে তো এসব নিয়ে প্রশ্ন ওঠাই উচিৎ নয়। কারণ সিনেমায় আমি আর শামা নই। যৌনদৃশ্যে অভিনয় ভাল-খারাপ বিচার করার আমরা কে?

 

 

 

 

 

 

তবে এই ধরনের চরিত্রই যে শামার কাপ অব টি সে কথাও খোলসা করলেন। আর বললেন, এই চরিত্রগুলো অভিনেত্রী হিসেবে নিজেকে মেলে ধরার সুযোগ দেয়। আমি সেক্সি তাই যৌনতাও আমার খুব ভাল লাগে। আর তাতে আমার পরনে যাই থাকুক না কেন আমাকে সেক্সি দেখাবেই।

 

 

 

 

 

 

শামা প্রযোজনা আর পরিচালনাও সামলে যাচ্ছেন সমান তালে। সামনে বেশ কিছু নতুন প্রজেক্ট নিয়ে আসছেন শামা সিকান্দার।