প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:      এবার রাশিয়ার ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা আনতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এক বিবৃতিতে ওয়াশিংটনের তরফ থেকে এমন পদক্ষেপের কথা জানানো হয়েছে।

 

 

 

 

যুক্তরাজ্যে বসবাসরত সাবেক রুশ এজেন্ট এবং তার মেয়ের ওপর নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরেই রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আনার কথা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

 

 

 

 

 

 

গত মার্চে সাবেক রুশ এজেন্ট সের্গেই স্ক্রিপাল এবং তার মেয়ে ইউলিয়াকে সালিসবারি শহরের একটি বেঞ্চে অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে জানা যায় যে, তাদের ওপর রাসায়নিক নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগ করা হয়েছে। এতে তারা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার কয়েক সপ্তাহ পর তারা সুস্থ হতে শুরু করেন।

 

 

 

 

 

 

ব্রিটেনের এক তদন্তে ওই রাসায়নিক হামলার জন্য রাশিয়াকে দায়ী করা হয়েছে। তবে এ ধরনের অভিযোগে কঠোরভাবে বিরোধীতা করেছে ক্রেমলিন। তাদের দাবি ওই হামলার সঙ্গে রাশিয়ার কোন সম্পর্ক নেই।

 

 

 

 

 

বুধবার এক বিবৃতিতে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে তারা নিশ্চিত হয়েছেন যে, রাশিয়াই ওই ঘটনার সঙ্গে জড়িত।

 

 

 

 

 

পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র হিথার নওয়ের্ট এক বিবৃতিতে বলেন, এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে যে দেশটি রাসায়নিক বা জৈবিক অস্ত্র ব্যবহার করে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছে। অথবা, তারা নিজেদের দেশের নাগরিকদের ওপর লিথাল রাসায়নিক বা জৈবিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে।

 

 

 

 

 

 

 

যুক্তরাষ্ট্রের এমন পদক্ষেপে স্বাগত জানিয়েছে ব্রিটেন। এক বিবৃতিতে ব্রিটেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে বলা হয়েছে, সালিসবারির রাস্তায় রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করার ঘটনায় কঠোর আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া রাশিয়াকে স্পষ্ট বার্তা দিচ্ছে যে, তাদের উত্তেজক এবং বেপরোয়া আচরণকে অবশ্যই চ্যালেঞ্জ করা হবে।