প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:         নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনকালে সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত সাংবাদিকদের চিকিৎসার ব্যয় সরকার বহন করবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

 

 

 

 

 

তিনি বলেছেন, নির্যাতিত সাংবাদিকদের ওপর যারা হামলা চালিয়েছে তাদের গ্রেফতার করে শাস্তিরও ব্যবস্থা করা হবে।বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন এবং ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর তিনি এ কথা জানান।

 

 

 

 

 

 

বৈঠক থেকে তথ্য প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট তারানা হালিম জানান, এ ব্যাপারে স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে চিঠি দেওয়া হবে। এ ছাড়া ঈদুল আজহার আগে সাংবাদিকদের মহার্ঘ ভাতা ঘোষণারও প্রস্তুতি চলছে।

 

 

 

 

 

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ভবিষ্যতে যেন গণমাধ্যমকর্মীদের ওপর এ ধরনের হামলা না হয়, তা নিশ্চিত করা হবে।

 

 

 

 

বৈঠকে বিএফইউজে নেতারা তথ্যমন্ত্রীকে জানান, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় ২৪ জন সাংবাদিক হামলার শিকার হন। তাদের মধ্যে ১২ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

 

 

 

 

গণমাধ্যমকর্মীদের ওপর দেশি অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে হামলাকারীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে সরকারকে ৭২ ঘণ্টার সময় বেঁধে দেন সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ। শনিবার সেই সময় শেষ হবে।

 

 

 

 

তথ্যমন্ত্রী বৈঠকে বলেন, সাংবাদিকদের ওপর যারা হামলা করেছে তারা দুর্বৃত্ত। তাদের গ্রেফতারে সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

 

 

 

 

 

আলটিমেটাম অনুযায়ী দুর্বৃত্তদের গ্রেফতার করে সেই খবর সাংবাদিক নেতাদের দেওয়ার চেষ্টা করবেন জানিয়ে তিনি বলেন, এ নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি।

 

 

 

 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উদ্যোগও নিচ্ছেন। সাংবাদিকদের ওপর যারা হামলা করেছে, তারা সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করে গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করেছে। এটা পরিকল্পিত চক্রান্ত।

 

 

 

 

 

 

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, তথ্য সচিব আবদুল মালেক, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল, মহাসচিব শাবান মাহমুদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্য, সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।