প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:       ব্যস্ত জীবনযাত্রা, অনিয়মিত ডায়েট এবং স্ট্রেসের কারণে যৌন সমস্যা সাধারণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। চিন্তার বিষয় হলো, এই সমস্যা প্রতি ঘরে ঘরেই দেখা যাচ্ছে। মিলনের উপকারিতা সম্পর্কে রিডার্স ডায়জেস্ট-এ একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

 

 

 

 

প্রতিবেদনে বলা হয়, সুস্থ, স্বাভাবিক যৌন সম্পর্কের ফলে শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি হয়, মেদ কমে। সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে এর ফলে বাড়ে আয়ু। আবার দেখা গেছে, বয়স একটু বেড়ে গেলেই মিলনের অনিচ্ছা চলে আসে। অনেক সময় তা থাইরয়েড বা ডায়াবেটিসের কারণেও হতে পারে।

 

 

 

 

 

এর মাঝেই আরেকটি বিষয় জানেন কি? সুস্থ যৌন মিলনের জন্য সবচেয়ে ভালো সময় কোনটি? হরমোন বিশেষজ্ঞদের মতে, বিকেল তিনটা।

 

 

 

 

 

দিন ও রাতের বিভিন্ন সময়ে শরীরে হরমোনের মাত্রা বাড়ে-কমে। কিন্তু এ সময়ে মেয়েদের শরীরে কর্টিসল হরমোনের পরিমাণ বেশি হয়। এতে তাদের শক্তি ও মনোযোগ বেশি থাকে।

 

 

 

 

অন্যদিকে একই সময়ে পুরুষের শরীরে ইস্ট্রোজেন হরমোনের পরিমাণ বেশি থাকে, ফলে তারা মিলনের সময়ে সঙ্গীর চাহিদা ও অনুভূতির প্রতি বেশি মনযোগী হয়ে থাকেন। ফলে এ সময় শারীরিক সম্পর্কের সুফল পান দুজনেই।

 

 

 

 

 

হরমোন বিশেষজ্ঞ এবং বিখ্যাত ‘ওম্যানকোড’ (WomanCode) বইয়ের লেখিকা এলিসা ভিটি (Alisa Vitti) জানান, মিলনের এমন উপায় বেছে নিতে হয় যাতে দুজনেরই চাহিদা একই মাত্রায় থাকে। এ কারণেই বিকেল তিনটায় মিলন বেশি সন্তুষ্টিজনক হয়।

 

 

 

 

 

 

এলিসার মতে, মিলনে বড় ভূমিকা রাখে শরীরে বিভিন্ন হরমোনের উপস্থিতি। আমাদের অনুভূতির ওপরেও অনেকটা প্রভাব ফেলে এই হরমোন। এসব কারণেই দুপুর তিনটায় মিলনের সূচনা নারী ও পুরুষ উভয়ের জন্যই বিশেষ উপকারী।

 

 

 

 

 

সুস্থ মিলনের আরেকটি ভালো সময় হলো সকালে। এলিসা ভিটির মতে, ঘুমের মধ্যে পুরুষের শরীরে টেস্টোস্টেরন হরমোনের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। ফলে সকালে তারা যৌন মিলনের জন্য অনেক বেশি আগ্রহী থাকে। ফলে দুপক্ষেরই যৌন সন্তুষ্টি বৃদ্ধি পায়।

 

 

 

 

 

 

ইতালীয় একটি গবেষণায় দেখা গেছে, সন্তান ধারণে ইচ্ছুক দম্পতিদের জন্য সকালবেলা মিলন ভালো সময়। শুধু তাই নয়, সকালের মিলনে গর্ভধারণের সম্ভাবনাও অনেক বেশি।