প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:      কর্তব্যরত নার্সরা নিজেদের ফোনে ফেসবুক করতে ব্যস্ত৷ হাসপাতালে নেই বেড৷ তাই চিকিৎসার অভাবে মৃত্যু হল এক কলেজ পড়ুয়ার৷ ঘটনাটি ঘটেছে জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে৷ মৃতের নাম রাজা সাহা৷

 

 

 

 

ঘটনায় রোগীর পরিবার হাসপাতাল ভাঙচুরের চেষ্টা করে৷ পাশাপাশি কর্তব্যরত নার্স ও চিকিৎসককে আটকে রেখে বিক্ষোভ দেখায়৷ ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে৷

 

 

 

 

 

রাজার পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, জলপাইগুড়ি বেড়ুবাড়ি এলাকার বাসিন্দা রাজা সাহা এসি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র৷ সোমবার রাতে নিজের ঘরে পড়ছিল রাজা৷ সেই সময় তাঁকে ছোবল দেয় সাপটি৷

 

 

 

 

 

সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে৷ সেখানে বেড না থাকায় তাঁকে অ্যন্টিভেনাম দেয়নি চিকিৎসকরা৷ এমনকী কর্তব্যরত নার্সরা নিজেদের ফোনে ফেসবুক করতে ব্যস্ত ছিল৷ তাঁদেরকে বলা সত্ত্বেও তাঁরা রাজাকে কোনও গুরুত্ব দেয়নি৷

 

 

 

 

পরিবারের অভিযোগ, রাজাকে অ্যন্টিভেনাম না দেওয়ায় তাঁর মৃত্যু হয়েছে৷ পরিবারের সদস্যরা তাঁর মৃত্যর পর চিকিৎসার গাফিলতির কারণে মৃত্যু জন্য হাসপাতাল ভাঙচুরের চেষ্টা করে৷

 

 

 

 

 

 

কর্তব্যরত নার্স ও চিকিৎসককে আটকে রেখে বিক্ষোভ দেখায়৷ ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে৷ ঘটনার পর এখনও পর্যন্ত থানায় কোনও লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়নি৷