প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:       আগামী ২২ আগস্ট পবিত্র ঈদুল আজহা পালিত হবে। ইতোমধ্যে যারা কুরবানি করবেন; তারা পশু কিনতে শুরু করেছেন। কেউ কেউ কুরবানির জন্য গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া, দুম্বা ও উট কেনার কথা ভাবছেন। পশু কেনার আগে কিছু বিষয়ে অবশ্যই জেনে নেওয়া ভালো। আর তা হচ্ছে- পশুর সুস্থতা নিশ্চিত করা।

 

 

 

 

 

 

সুস্থ-সবল পশু চিনবেন কীভাবে? সে ক্ষেত্রে কিছু বৈশিষ্ট্যের দিকে খেয়াল করলে সহজেই সুস্থ-সবল পশু চিনতে পারবেন-

 

 

 

 

 

সুস্থ পশু চেনার উপায়

১. পশুর চোখ উজ্জ্বল ও তুলনামূলক বড় আকৃতির হবে।
২. অবসরে জাবর কাটবে (পান চিবানোর মত)।
৩. কান নাড়াবে, লেজ দিয়ে মাছি তাড়াবে।

 

 

 

৪. বিরক্ত করলে প্রতিক্রিয়া দেখাবে, সহজেই রেগে যাবে।
৫. গোবর স্বাভাবিক থাকবে, পাতলা পায়খানার মতো হবে না।
৬. দেখতে প্রাণবন্ত, চামড়া ঝকঝকে দেখাবে।

 

 

 

 

৭. নাকের ওপরটা ভেজা ভেজা মনে হবে।
৮. সামনে খাবার এগিয়ে ধরলে জিহ্বা দিয়ে তাড়াতাড়ি টেনে নিতে চাইবে।
৯. অন্যদিকে অসুস্থ পশু ভালোভাবে খেতে চাইবে না।

 

 

 

১০. দীর্ঘ যাত্রায় ক্লান্ত পশুটাকে অসুস্থ ভাববেন না।
১১. মোটাতাজা করার ওষুধ দিলে সেগুলোর শরীরে পানি জমে ফুলে ওঠে।
১২. পানির প্রতি আকর্ষণ বেশি থাকে।

 

 

 

 

১৩. লেজ দিয়ে মাছিও খুব একটা তাড়াতে দেখা যায় না।
১৪. খাবারও তুলনামূলকভাবে কম খায়।
১৫. আঙুল দিয়ে শরীরের মাংসালো অংশে চাপ দিলে পশুর শরীর দেবে যাবে।

 

 

 

 

 

১৬. পশুর শরীরে সহজে পানির উপস্থিতি টের পাওয়া যাবে।
১৭. সুস্থ পশুর পাঁজরের হাড়ে উঁচু-নিচু থাকবে।
১৮. আড়াই থেকে তিন বছরের (৩০ থেকে ৪২ মাস) গরু ভালো।

 

 

 

 

 

 

১৯. অসুস্থ পশু হেলেদুলে ধীরে চলবে।
২০. অসুস্থ পশু রোদে থাকতে চাইবে কম, ধীরে ধীরে ছায়া খুঁজবে।