প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:      পরিপূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষ হয়েছে ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ীর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া।বিকেল ৩ টা ৪৫ মিনিটে বাজপেয়ীর মরদেহ পৌঁছায় দিল্লির স্মৃতিস্থল শ্মশানে।

 

 

 

 

দুপুর ২টার দিকে দিল্লির দীন দয়াল উপাধ্যায় মার্গের বিজেপির নতুন সদর দফতর থেকে আইটিও ক্রসিং এবং দিল্লি গেট হয়ে বাজপেয়ীর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় রাজঘাটে। রাজঘাট থেকে নেওয়া হয় রাষ্ট্রীয় স্মৃতিস্থলে।

 

 

 

 

হাজারো মানুষের সঙ্গে অটল বিহারীর শেষ যাত্রায় পায়ে হেঁটে শ্মশানে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সঙ্গে ছিলেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ।

 

 

 

 

 

সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে উপস্থিত ছিলেন লাখো মানুষ। দলীয় কার্যালয় থেকে রাষ্ট্রীয় স্মৃতিস্থলে যাত্রার আগে সকাল থেকে সেখানে গীতা পাঠ করা হয়।

 

 

 

 

বিশাখাপত্তনমে বালু ভাস্কর্য তৈরি করে টিডিপি নেতারা শেষ শ্রদ্ধা জানান অটলবিহারি বাজপেয়ীকে। ২০১৮ সালে ভারতীয় অ্যাথলেটরা যেসব পদক জয় করেছেন তা প্রয়াত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীকে উৎসর্গ করা হয়েছে। গান স্যালুটের মধ্য দিয়ে অন্তিম শ্রদ্ধা জানানো হয় বাজপেয়ীকে।

 

 

 

 

 

আফগানিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই দিল্লিতে এসে প্রয়াত বাজপেয়ীকে শেষ শ্রদ্ধা জানান। এদিন বাজপেয়ির শেষকৃত্যে এসে আরও শ্রদ্ধা জানান পাকিস্তানের আইন ও তথ্য মন্ত্রী ব্যারিস্টার সইদ আলি জাফর, নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপ গওয়ালি এবং শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্রমন্ত্রী লক্ষন কিরিয়েলা।

 

 

 

 

 

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানাতে বাজপেয়ীর অন্তেষ্টিক্রিয়ায় যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহবুব আলী।