প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:     ব্রাহ্মনবাড়িয়ার আশুগঞ্জ অভ্যন্তরীন কন্টেইনার টার্মিনাল বাস্তবায়ন হলে দুই দেশই লাভবান হবে। সেই সাথে প্রসার ঘটবে দুই দেশের ব্যবসা বানিজ্যেও।
শুক্রবার  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ নদী বন্দর পরিদর্শন শেষে এ কথা বলেন ভারতের ত্রিপুরার র্শীষ ব্যবসায়ী সংগঠন অল ত্রিপুরা মার্চেন্ট এসোসিয়েশন ব্যবসায়ীক নেতৃ-বৃন্দ।
প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন ত্রিপুরা ইন্ডাষ্ট্রিজ ডেভেলপমেন্টের চেয়ারম্যান টিংকু রায়। ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলের সদস্যরা আরো বলেন, দু দেশের মধ্যে ব্যবসা বানিজ্য শুরু হলে উভয় দেশের মালামাল পরিবহনের পরিবহন ব্যয়ও কমে যাবে অনেকাংশে।
এ ছাড়া দুই দেশের পন্য আমদানি-রফতানিতে সহজতর হবে আরো। প্রতিনিধি দলের অন্যান্য সদস্যরা হলো অল ত্রিপুরা মার্চেন্ট এসোসিয়েশন সভাপতি তুষার চক্রবর্তী, সাধারন সম্পাদক সুজিত রায়, অর্গানাজিং সম্পাদক প্রাণ গোপাল সাহা, যুগ্ম-সম্পাদক অভিজিৎ দেব, দিপংকর বিশ্বাস ওপার্থ বিশ্বাস।
এ সময় বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের সদস্যরা ছিলেন ভৈরব উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হাজী মোঃ সাইদুল্লাহ মিয়া, আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা হেবজুল বারী, হাজী মোঃ মোবারক আলী চৌধুরী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাজী মোঃ সাইদুর রহমান, আতাউর রহমান কবীর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সার সমিতির সাধারন সম্পাদক নজরুল ইসলাম বকুল, আশুগঞ্জ নদী বন্দরের ইজারাদার কবীর হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মারুফ রনিসহ আশুগঞ্জ নদী বন্দরের ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।
ভারতীয় প্রতিনিধি দলের সদস্যরা দুপুরে আশুগঞ্জ নদী বন্দর পৌছে নদী বন্দর জেটি ঘাট, প্রস্তাবিত অভ্যন্তরীন কন্টেইনার টার্মিনাল, সার কারখানা ঘাটসহ মেঘনা নদীর বিভিন্ন এলাকা পরির্দশন করেন।
ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলটি বাংলাদেশে ভারত চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজের আমন্ত্রনে দুই দিনের সফরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ নদী বন্দর ও নারায়নগঞ্জ নদী বন্দর পরিদর্শন এবং বন্দরের ব্যবসায়ীকদের সাথে মতবিনিময় করবেন। আশুগঞ্জ বন্দর পরির্দশন শেষে বিকেলে নারায়নগঞ্জ নদী বন্দরের উদ্যোশে আশুগঞ্জ ত্যাগ করেন প্রতিনিধি দলটি।