প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:      শৌচালয়ের বাইরে ব্যবহৃত স্যানিটারি ন্যাপকিন কে ফেলেছে? এটা দেখতে ৪০ জন আবাসিক ছাত্রীকে প্রায় নগ্ন করে তল্লাশি চালানোর অভিযোগ উঠেছে। আর এ অভিযোগ হোস্টেল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে।

 

 

 

 

 

লজ্জাজনক এ ঘটনাটি ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের ড. হরি সিং গৌর বিশ্ববিদ্যালয়ের নয়া রানি লক্ষ্মী বাঈ গার্লস হস্টেলে।

 

 

 

 

এখন বিভিন্ন সরকারি অফিস, স্কুল, কলেজসহ বিভিন্ন জায়গায় যখন নারীদের সুবিধার্থে স্যানিটারি ন্যাপকিনের ভেন্ডিং মেশিন চালু হচ্ছে। অনেক জায়গায় চালু করার প্রস্তাব আসছে। ঠিক তখন ন্যাপকিন বিতর্কে হোস্টেল কর্তৃপক্ষের এমন বর্বরোচিত আচরণে বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

 

 

 

 

 

জানা গেছে, ছাত্রী আবাসনের বাইরে একটি ব্যবহৃত স্যানিটারি ন্যাপকিনকে ঘিরেই যত বিপত্তি। আবাসনের শৌচালয়ের ঠিক বাইরেই পড়েছিল ন্যাপকিনটি। তা দেখেই রেগে যান ছাত্রী আবাসনের ওয়ার্ডেন অধ্যাপিকা চন্দা বেন। কে এই কাজ করেছে, তা খুঁজে দেখতে ইন্দু নামের এক কেয়ারটেকারকে নির্দেশ দেন তিনি। যে ছাত্রীর এখন ঋতুস্রাব চলছে, সে-ই এই কাজ করেছে।

 

 

 

 

 

 

এবিষয়ে একপ্রকার নিশ্চিত হয়েই তিনি ছাত্রীদের তল্লাশির নির্দেশ দেন। এরপর ওয়ার্ডেনের নির্দেশ মাফিক পৃথকভাবে ছাত্রীদের তল্লাশি শুরু করে কেয়ারটেকার। ৪০ আবাসিক ছাত্রীর সঙ্গে এই ঘটনাটি ঘটে।

 

 

 

 

 

এদিকে এই অসম্মানজনক পদক্ষেপের পর কলেজ অধ্যক্ষের আবাসনের বাইরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন ৪০ জন ছাত্রী। বিক্ষোভকারী ছাত্রীদের তরফে একজন প্রতিনিধিও যান উপাচার্য আরপি তিওয়ারির কাছে।

 

 

 

 

গোটা ঘটনাটি শোনার পর তিনি বলেন, এটি দুর্ভাগ্যজনক ও নিন্দনীয় ঘটনা। ঘটনার তদন্ত হবে। তাতে ওয়ার্ডেন চন্দা বেন যদি দোষী প্রমাণিত হন, তাহলে তাঁর বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

 

 

 

 

উল্লেখ্য, এই মধ্যপ্রদেশের স্কুলেই প্রথম স্যানিটারি ন্যাপকিনের ভেন্ডিং মেশিন চালু হয়। স্কুলের তরফে ছাত্রীদের বিশেষ কয়েনও দেওয়া হয়েছিল। যাতে সেই কয়েনের বিনিময়ে তারা ন্যাপকিন পেতে পারে।

 

 

 

 

 

 

 

পরে কয়েনটি স্কুল কর্তৃপক্ষকে জমা দিয়ে দেয়। নারী দিবসে অক্ষয়কুমারের ‘প্যাডম্যান’ ছবিটি মুক্তি পাওয়ার পর স্যানিটারি ন্যাপকিন নিয়ে যে ট্যাবু সমাজে রয়েছে তা প্রায় কাটতে চলেছে। এঅবস্থায় মধ্যপ্রদেশের রানি লক্ষ্মী বাঈ গার্লস হস্টেলের এই ঘটনায় বিতর্ক শুরু হয়েছে।