প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:         চারদিকে যেন অকূল পাথার। যেদিকে চোখ যায় শুধু পানি আর পানি। বাড়ির মধ্যেও হু হু করে ঢুকছে বন্যার পানি। নেই টেলিফোন বা মোবাইলের মাধ্যমে যোগাযোগের ব্যবস্থা।

 

 

 

 

 

এরমধ্যেই নিজেকে ও গর্ভের সন্তানকে বাঁচাতে লড়াই করছিলেন সাজিতা নামে এক মা। আর কোনো উপায়ে না পেয়ে উঠে পড়েন বাড়ির ছাদে। সেখান থেকে অবিশ্বাস্যভাবে বেঁচে যান তিনি। আর পর পরই ওই নারীর কোলজুড়ে জন্ম নেয় ফুটফুটে এক শিশু।

 

 

 

 

 

ঘটনাটি ভারতের কেরালা রাজ্যের। গত আট দিনে বন্যায় বিপর্যস্ত সেখানের মানুষ। চারদিকে যেন মৃত্যুর হাতছানি। দেশটির দক্ষিণে ওই রাজ্যে তীব্র এই সংকট মোকাবিলায় নেমেছে ১৬ কোম্পানি সেনাসদস্য, ৪২ কোম্পানি নৌসেনা, ২৮ কোম্পানি উপকূলরক্ষী বাহিনী ছাড়াও ৩৯ কোম্পানি বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী।

 

 

 

 

 

পানিবন্দি সেই মা সাজিতা ও তার গর্ভের সন্তানকে প্রাণ ফিরিয়ে দিয়েছেন বন্যার্তদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়া নৌবাহিনীর সদস্যরা। উদ্ধারের ওই ঘটনার বর্ণনা দেওয়া হয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টাইমসের খবরে।

 

 

 

 

 

 

সংবাদমাধ্যমটি জানায়, সাহায্যের আশায় বাড়ির ছাদে ওঠেন সাজিতা। সেই সময়েই আকাশে দেখা যায় নৌবাহিনীর একটি হেলিকপ্টার। সাজিতার আর্তনাদ শোনা না গেলে তাকে দেখতে পেয়ে হেলিকপ্টারটি নেমে আসে।

 

 

 

 

 

 

 

সেটিতে থাকা সেনা সদস্যরা বেল্ট দিয়ে বেঁধে সাজিতাকে হেলিকপ্টারে তুলে নেন। পৌঁছে দেন হাসপাতালে। সেখানে তিনি একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দেন।