প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:       একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখেআগামী অক্টোবরে গঠন হচ্ছে নির্বাচনকালীন সরকার। তফসিল ঘোষণার পর ছোট হয়ে আসবে মন্ত্রিপরিষদের আকার। তবে সংসদের বাইরে থাকায় এ সরকারে বিএনপির থাকার কোনো সুযোগ নেই।

 

 

 

 

 

নির্বাচনকালীন সরকারের আকারও হবে ছোট। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সড়কমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক সাক্ষাতকারে এসব কথা জানান।

 

 

 

 

 

আওয়ামী লীগ সরকারের টানা দ্বিতীয় মেয়াদ শেষ হচ্ছে জানুয়ারিতে। সংবিধান অনুযায়ী সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার পূর্ববর্তী ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচনের বাধ্যবাধ্যকতা রয়েছে। সে হিসেবে অক্টোবরে তফসিল ঘোষণা করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন।

 

 

 

 

 

তফসিল ঘোষণার পর সরকারের দায়িত্ব পালন করবে নির্বাচনকালীন সরকার। অক্টোবরে তফসিল ঘোষণার পরই ছোট হয়ে আসবে মন্ত্রিপরিষদের আকার বলছেন, আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক।

 

 

 

 

 

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, অক্টোবরে যদি তফসিল ঘোষণা হয়, তাহলে অক্টোবরেই নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করা হবে। এই সরকার নির্বাচনকালীন সরকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে। নতুন কেউ যদি শপথ গ্রহন করতে না হয় তাহলে কোনা শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানও হবে না ।

 

 

 

 

 

সুষ্ঠু ভোট অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনকে সহায়তা করবে নির্বাচনকালীন সরকার। নতুন করে নীতি নির্ধারণী কোনো সিদ্ধান্ত বা তা বাস্তবায়ন করতে পারবে না এ সরকার। ওবায়দুল কাদের জানান, সংসদে প্রতিনিধিত্ব নেই এমন রাজনৈতিক দলের নির্বাচনকালীন সরকারে থাকার কোনো সুযোগ নেই।

 

 

 

 

 

নির্বাচনকালীন সরকারে থাকার সুযোগ না থাকলেও বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশ নেবে বলে আশা করছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তবে, বিএনপিকে নির্বাচনে আনতে আওয়ামী লীগ কোনো উদ্যোগ নেবে না বলেও সাফ জানান ওবায়দুল কাদের।