প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:     চার পুরুষসহ প্রথমবারের মতো এক নারী মানবাধিকার কর্মীর ফাঁসি চেয়েছে সৌদি আরব। ২০১১ সালে এক আন্দোলনে অংশ নেওয়ার দায়ে ঐ নারীসহ বাকিদের ফাঁসি চেয়ে আদালতে আবেদন করেছে দেশটির সরকার কৌসুলী।

 

 

 

 

 

২০১১ সালে দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় অঞ্চলে সরকার বিরোধী এক আন্দোলনে অংশ নেন ইসরা আল-ঘোমঘাম নামের ঐ নারী। ২০১৫ সালে স্বামীসহ আটক করা হয় ইসরাকে। সৌদি আরবে মানবাধিকার বিষয়ে আন্দোলন করা নারীদের মধ্যে প্রথমবারের মতো ফাঁসির আসামী হলেন ইসরা।

 

 

 

 

 

ফাঁসির আবেদনের মুখোমুখি হওয়া এই পাঁচ কর্মীসহ মোট ছয় মানবাধিকার কর্মী দুই বছরেরও বেশি সময়ে ধরে দেশটির কারাগারে বন্দী আছেন।

 

 

 

 

 

এদিকে ইসরার জন্য ফাঁসির আবেদন চাওয়ার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানায় হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)। এক বিবৃতিতে সংস্থাটি জানায়, “মানবাধিকার কর্মীদের বিপক্ষে গুরুতর কোন অপরাধের অভিযোগ আনা হয়নি। এমন ক্ষেত্রে মৃত্যুদণ্ড ব্যতিত অন্য কোন সাজার আবেদন না করা ভয়ংকর”।

 

 

 

 

 

 

 

 

সৌদি আরবের বিশেষ অপরাধ আদালতে বিচার করা হচ্ছে ঐ মানবাধিকার কর্মীদের। জঙ্গিগোষ্ঠী সদস্যদের বিচারের জন্য ২০০৮ সালে আদালতটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। আগামী ২৮ অক্টোবর এই আদালতে হাজির করা হবে ইসরাসহ বাকি মানবাধিকার কর্মীদের।