প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:      ভারত শাসিত জম্মু-কাশ্মীরের অনেক পরিবারের ছেলেমেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠান এবং বিশাল ভোজের আয়োজন করেও গণমাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিয়ে তা বাতিল করা হচ্ছে। গত কয়েকদিনে সেখানকার অনেক পরিবার এমনটি করেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি বাংলা।

 

 

 

 

 

শ্রীনগরের বাসিন্দা নাজির আহমেদ বলেন, আজ (৩০ আগস্ট ২০১৮, বৃহস্পতিবার) আমার মেয়ের বিয়ে। কত সাধ ছিল মেয়ের বিয়েতে বড় অনুষ্ঠান ও ভোজের আয়োজন করবো, সবাই আসবে! কিন্তু বাতিল করতে বাধ্য হলাম।

 

 

 

 

তিনি বলেন, সবাই বলছে যে তারা আসতে পারবেন না। এতো বড় ভোজের আয়োজন করে কী করবো? এখন ধর্মীয় রীতি অনুসারে শুধু বিয়েটাই হবে, কোনও অনুষ্ঠান নয়। সবাইকে আলাদা করে জানানোর সময় নেই, তাই কাগজে বিজ্ঞাপন দিয়েছি।

 

 

 

 

 

এদিন ছোট বোনের বিয়ের অনুষ্ঠান বাতিল করা মুস্তাক আহমেদ বলেন, যা পরিস্থিতি, তাতে কীভাবে ভোজ বা বড়সড় অনুষ্ঠান আয়োজন করবো? একদিকে কারফিউ, অন্যদিকে দুদিনের হরতাল শুরু হয়েছে আজ থেকে।

 

 

 

 

 

 

উল্লেখ্য, ভারতের সংবিধানে জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যকে বিশেষ মর্যাদা দেয়া হয়েছে। কিন্তু এর একটি ধারা অনুযায়ী, কাশ্মীরে স্থায়ী বাসিন্দা কাদের বলা হবে তা তা ঠিক করার ক্ষমতা দেয়া হয়েছে রাজ্যের আইনসভাকে।

 

 

 

 

 

এছাড়া স্থায়ী বাসিন্দা নন, এমন কেউ জম্মু-কাশ্মীরে জমি ও বাসাবাড়ির মতো কোনও সম্পত্তি কিনতে পারেন না।

 

 

 

 

সুপ্রিম কোর্টে কয়েকজন ব্যক্তি এবং একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আবেদন করেছে যে এই ধারা তুলে দেয়া হোক। শুক্রবার এই আবেদনের শুনানি হবে।

 

 

 

 

 

 

এরই প্রেক্ষিতে বেশকিছু বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন, রাজনৈতিক দল এবং ব্যবসায়ী সংগঠন বৃহস্পতি ও শুক্রবার হরতাল ডেকেছে। অন্যদিকে বিক্ষোভ প্রদর্শন এবং অশান্তি হতে পারে বলে কারফিউ জারি করেছে প্রশাসন।