প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:     বরিশাল নগরীর ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর জাগুয়া এলাকায় দুই সন্তানের জননী এক গৃহবধূকে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার পর থেকে গৃহবধূর স্বামী মামুন হাওলাদার পলাতক রয়েছেন।

 

 

 

 

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। গৃহবধূ নুপুর আক্তার উত্তর জাগুয়ার বাসিন্দা মুদি দোকানি মামুন হাওলাদারের স্ত্রী। নুপুর আক্তার ঝালকাঠী সদর উপজেলার রামচন্দ্রপুরের দক্ষিণ বালিঘোনা গ্রামের সত্তার মল্লিকের মেয়ে।

 

 

 

 

নুপুর আক্তারের ভাই ইলিয়াস বলেন, ১১ বছর আগে মামুন হাওলাদারের সঙ্গে নুপুরের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের দাবিতে তাকে নির্যাতন করে করা হচ্ছিল। ৩ বছর আগে প্রতিবেশী এক তরুণীকে দ্বিতীয় বিয়ে করে মামুন।

 

 

 

 

 

এরপরও স্বামীর ঘরে ছিল নুপুর। বুধবার রাতে স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে অমানুষিক নির্যাতন করে। সকালে শোবার ঘরে তার মরদেহ পাওয়া যায়। তার আগেই পালিয়েছে স্বামী মামুন।

 

 

 

 

ইলিয়াস অভিযোগ করেন, নির্যাতনে মৃত্যু হলেও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে নুপুরের মৃত্যু হয়েছে বলে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন অপপ্রচার করছে। এ ঘটনায় হত্যা মামলা করা হবে।

 

 

 

 

 

কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) আসাদ বলেন, গৃহবধূর শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন নেই। হত্যার কোনো আলামত পাওয়া যায়নি।

 

 

 

 

 

ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন ছাড়া মৃত্যুর সঠিক কারণ নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।