প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:     রাজনীতিতে নতুন মেরুকরণ নিয়ে চোখ রাখছে সব দলই। ড. কামাল হোসেন ও অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বে সমাবেশে বিএনপির যোগদান ও জাতীয় ঐক্যের আহ্বানকে ঘিরে শুরু হয়েছে নানামুখী আলোচনা। সার্বিক পরিস্থিতির প্রতি দৃষ্টি রাখছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। সতর্কতার সঙ্গেই আওয়ামী লীগের সবকিছুর প্রতি গভীর পর্যবেক্ষণ।

 

 

 

 

 

এর মধ্যে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া সার্বিক রাজনীতিতে কতটা প্রভাব রাখবে সেই দিকেও সরকারি দল খেয়াল রাখছে। এই বাস্তবতা নিয়ে পিছিয়ে নেই জাতীয় পার্টি ও জামায়াতের মতো ডানপন্থি দল। আবার বাম দলগুলোও আলোচনা করছে নিজেদের মধ্যে। আওয়ামী লীগ মনে করে পুরো ঐক্য সরকারি দলের বিরুদ্ধে গভীর পরিকল্পনা নিয়ে করা। আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে জোট করার প্রাথমিক প্রচেষ্টায় হচ্ছে সবার এক মঞ্চে ওঠা।

 

 

 

 

 

আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের এক নেতা বলেন, অতীতেও এই ধরনের ঐক্য কোনো কাজে লাগেনি, এবারও লাগবে না। অন্যদিকে বিএনপি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে সবকিছু। তাদের মধ্যে ইতিবাচক ধারা তৈরি হয়েছে। বিএনপি মনে করে, প্রয়োজনে ছাড় দিয়ে এই ঐক্য তারা ধরে রাখবে। আর ঐক্যকে ঘিরেই সভা-সমাবেশ করবে সারা দেশে। এর মধ্যে বিএনপির শীর্ষ কয়েকজন নেতা সমাবেশের আগের দিন রাতে অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বাড়িতে গিয়ে তাদের অতীত কর্মকাণ্ডের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন। ভবিষ্যতে এমন হবে না বলে আশ্বাসও দিয়েছেন।

 

 

 

 

 

একইভাবে ড. কামাল হোসেনকেও তারা বলেছেন, আগামী দিনের রাজনীতিকে সুস্থ একটা প্রক্রিয়া নিতে ড. কামাল হোসেনকে জাতীয় মুরব্বি মনে করে বিএনপি। ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ অনেকটা খোলামেলাই কথা বলেন কামাল হোসেনের সঙ্গে বৈঠকে। মির্জা ফখরুলও ব্যাখ্যা করেন তাদের অবস্থান। সূত্রমতে, কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও লন্ডনে অবস্থানরত দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গেও বৈঠকে অংশগ্রহণকারী নেতাদের কথা হয়েছে ফোনে।

 

 

 

 

 

বিএনপির শীর্ষ দুই নেতা দলের বৈঠকে অংশগ্রহণকারী নেতাদের নির্দেশ দিয়েছেন যে কোনোভাবে ঐক্যকে এগিয়ে নিতে। প্রয়োজনে আগামী নির্বাচনে তারা অনেক ছাড় দেবেন। এদিকে ঐক্য নিয়ে জাতীয় একজন নেতা বলেন, বর্তমান বাস্তবতায় ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গেই আগামী নির্বাচনে অংশ নেবেন তারা। এর মধ্যে ৭০টি আসন নিয়ে দরকষাকষি চলছে আওয়ামী লীগের সঙ্গে।

 

 

 

 

 

 

যে কোনোভাবে ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে তারা ঐক্য ধরে রাখবেন। জাতীয়পার্টি নেতাদের মতে, ভোটের হিসাব-নিকাশে এখন পর্যন্ত মহাজোটই এগিয়ে রয়েছে, তাই কোনো ধরনের ঐক্য নিয়ে তারা চিন্তিত নন।