প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:    আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় একাদশ সংসদ নির্বাচনে সব রাজনৈতিক দলকে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

 

 

 

দশম সংসদ নির্বাচন বিএনপিসহ সব দলের বর্জনের প্রেক্ষাপটে পরবর্তী নির্বাচন ঘনিয়ে আসার মধ্যে মঙ্গলবার নিজের এলাকা কিশোরগঞ্জে এক সমাবেশে বক্তৃতায় এই আহ্বান জানান তিনি।

 

 

 

 

ইটনা উপজেলায় ‘রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ কলেজ’ মাঠে আয়োজিত গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “সকল রাজনৈতিক দলেরই নির্বাচন করা উচিৎ বলে আমি মনে করি।

 

 

 

 

“প্রত্যেক রাজনৈতিক দলের শেষ লক্ষ্য হওয়া উচিৎ জনগণের কাছে যাওয়া ও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা। আগামী সংসদ নির্বাচনে প্রতিটি দল অংশগ্রহণ করুক, এটা আমি কামনা করি।”

 

 

 

 

রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে যোগ্য ও সৎ প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়ার প্রত্যাশাও রাখেন রাষ্ট্রপ্রধান আবদুল হামিদ।

 

 

 

 

ভোটারদেরও সৎ ও যোগ্য প্রার্থী দেখে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, “এমন সরকারকেই নির্বাচিত করতে হবে, যে সরকার দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি করতে পারবে।”

 

 

 

 

হাওরের বাসিন্দাদের উদ্দেশে আবদুল হামিদ বলেন, হাওরে কিছু এলাকা আছে, যেখান থেকে ধান কেটে ঘরে তোলা কৃষকের জন্য কষ্টের। সেসব এলাকায় রাস্তা করা হবে।

 

 

 

 

 

কৃষিকাজে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, “এক সময় ফরিদপুর, পাবনা, কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হাজার হাজার ধান কাটার শ্রমিক আসত। এখন তাদের এলাকা উন্নত হওয়ায় তারা আসে না। এ অবস্থায় ধান কাটার জন্য উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে।”

 

 

 

 

ইটনায় ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট স্থাপনের কাজ অচিরেই শুরু হবে বলে জানান তিনি।

 

 

 

 

দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ায় আবদুল হামিদকে সংবর্ধনা দিতে আয়োজিত এই সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ইটনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন।

 

 

 

 

 

সমাবেশে বক্তৃতা করেন কিশোরগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য সোহরাব উদ্দিন, কিশোরগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য মো. আফজাল হোসেন, কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রাষ্ট্রপতিপুত্র রেজওয়ান আহমেদ তৌফিক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জিল্লুর রহমান।

 

 

 

 

দুপুর আড়াইটায় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ হেলিকপ্টারে ইটনায় নামেন। পরে তিনি উপজেলা পরিষদ ডাকবাংলোয় বসে নয়টি উন্নয়নমূলক প্রকল্প উদ্বোধন করেন। এরপর তিনি যান গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে।

 

 

 

 

সন্ধ্যায় তিনি ‘রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মিলনায়তনে’ স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা, বিশিষ্ট ব্যক্তি ও গণমাধ্যম প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

 

 

 

 

ইটনায় যাওয়ার আগে সকালে রাষ্ট্রপতি অষ্টগ্রাম উপজেলায় গাড়িতে চড়ে হাওরে সড়ক নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন। তিনি অষ্টগ্রাম সদর থেকে ধলেশ্বরী নদীতে নির্মিত রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সেতুর উপর দিয়ে বাঙ্গালপাড়া ইউনিয়ন হয়ে নোয়াগাও পর্যন্ত সড়ক পরিদর্শন করেন।

 

 

 

 

 

পরে তিনি ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সড়কের অষ্টগ্রাম অংশের জিরো পয়েন্ট থেকে ভাতশালা পর্যন্ত সড়ক পরিদর্শন করেন। এ সময রাস্তার দু’পাশে শত শত নারী-পুরুষ দাঁড়িয়ে রাষ্ট্রপতিকে শুভেচ্ছা জানান। রাষ্ট্রপতিও গাড়ি থেকে হাত নেড়ে তাদের শুভেচ্ছার জবাব দেন এবং তিনি রাস্তায় দাঁড়িয়ে জনগণের সঙ্গে কথাও বলেন।

 

 

 

 

আবদুল হামিদ বলেন, “এ রাস্তা আপনাদের, এটি দেখাশোনা করার দায়িত্বও আপনাদের। এ রাস্তা নির্মিত হলে আপনারা অষ্টগ্রাম থেকে ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা ও বিভাগীয় শহরে গাড়িতে চড়ে যাতায়াত করতে পারবেন।”

 

 

 

 

কিশোরগঞ্জে পাঁচ দিনের সফরে বুধবার রাষ্ট্রপতির নিজের জন্মস্থান মিঠামইন উপজেলায় যাওয়ার কথা রয়েছে।