প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:      ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘোষণার পরপরই আদালতের ডকে দাঁড়িয়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর বলেছেন, আল্লাহ জজ সাহেবকে মাফ করে দিক।

 

 

 

 

 

এর আগে, বুধবার বেলা ১২টায় সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত ঢাকার ১নং অস্থায়ী দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘোষণা করেন বিচারক শাহেদ নুর উদ্দিন। এতে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন আদালত। অন্যদিকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, হারিস চৌধুরী, সাবেক সাংসদ কায়কোবাদসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন দেওয়া হয়েছে। বাকি ১১ আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

 

 

 

 

 

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত লুৎফুজ্জামান বাবর বলেন, তাহাজ্জুতের নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে ২১ আগস্ট হামলার বিচার চেয়েছিলাম। এটা একটা ঘৃণ্য অপরাধ। এর সঠিক বিচার চেয়েছিলাম।

 

 

 

 

তিনি আরো বলেন, আমি এই হামলায় জড়িত না। মিথ্যা মামলায় আমাকে সাজা দেওয়া হয়েছে। এটা রাজনৈতিক।লুৎফুজ্জামান বাবর অভিযোগ করে বলেন, হামলার ঘটনায় তারেক জিয়া ও খালেদা জিয়ার জড়িত বলে স্বীকারোক্তি না দেওয়ায় আমাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য সাজা দেওয়া হয়েছে।

 

 

 

 

তিনি বলেন, সরকারের লিখে দেয়া রায়, পড়ে শুনিয়েছেন বিচারক। আমি আর কারো কাছে যাবো না, আল্লাহর কাছে বিচার দিলাম। আল্লাহ জজ সাহেবকে মাফ করে দিক।

 

 

 

 

 

প্রসঙ্গত, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। অল্পের জন্য ওই হামলা থেকে প্রাণে বেঁচে যান বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি, তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা।

 

 

 

 

 

তবে হামলায় আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক, সাবেক রাষ্ট্রপতি (প্রয়াত) জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভী রহমানসহ ২২ জন নিহত হন। আহত হন দলের তিন শতাধিক নেতা-কর্মী। ঘটনার পরদিন মতিঝিল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফারুক আহমেদ বাদী হয়ে মামলা করেন।