প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :  শশা যেমন হজমে সাহায্য করে তেমনই অন্ত্র ও খাদ্যনালী পরিষ্কার রাখে। গরমকালে শরীর ঠাণ্ডা রাখতে নিয়মিত শশা খাওয়ার কথা ডায়েটিশিয়ানরা বলেই থাকেন। ডায়েটে নিয়মিত শশা রাখলে ত্বকে ‘অ্যাকনে’র সমস্যাও কমে যায়।
তবে শশার সবচেয়ে বড় যে উপকারটির কথা জানা যায়, তা হলো ওজন কমাতে সহায়তা। মেটবলিজমে সাহায্য করার কারণে শশা মেদ ঝরিয়ে ওজন কমাতেও সাহায্য করে। তাই রোগা হতে চাইলেও ডায়েটিশিয়ানরা শশা খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে শশা।
এই ডায়েটের নাম ৭ দিনের কিউকম্বার ডায়েট হলেও ১০ দিন পর্যন্ত মেনে চলা যেতে পারে। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, এই ডায়েটে ৭ কেজি পর্যন্ত ওজন কমানো যেতে পারে।

সকালের নাশতা
২টি সেদ্ধ ডিম
১ প্লেট শশার সালাদ

মিড মর্নিং স্ন্যাকস (নাশতার ২ ঘণ্টা পর)

১টা আপেল (২০০ গ্রামের কম)

দুপুরের খাবার
১টা ব্রেড টোস্ট
১ বাটি শশার সালাদ

স্ন্যাকস (দুপুরের খাবারের ২ ঘণ্টা পর)
কিউকাম্বার শেক (১টা শশা, ১টা আপেল ও একমুঠো পালং শাক দিয়ে তৈরি শেক)

রাতের খাবার
নিজের পছন্দের যে কোনো ফল (৩০০ গ্রাম)
(এরপর রাতে আর কিছু খাওয়ার প্রয়োজন নেই)