প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :  পরীক্ষা বলে কথা। শিক্ষার্থীর জীবনে পরীক্ষা এলেই আর কোনো কথা নেই।

 

 

যত সমস্যাই থাক, পরীক্ষায় তো বসতেই হবে। যে কখনও রাত জাগেনি, সেও নিশাচর হয়ে ওঠে। যে বইয়ের পাতা ওল্টাতে চায় না, তার সামনে বইয়ের পাহাড়। তবে এবার আমেরিকার কানসাসের এক হবু মায়ের পরীক্ষায় অংশগ্রহণের ছবি।

 

পরীক্ষা হলে গিয়ে নয়, রীতিমতো হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে পরীক্ষা দিচ্ছেন তিনি। শুধু তাই নয়, শিশুজন্মের কিছুক্ষণ আগে তিনি বার্ষিক পরীক্ষা দিয়েছেন অনলাইনে। তার ছবি ভাইরাল হয়েছে।

 

 

পরে ইনডিপেনডেন্ট এক প্রতিবেদনে জানায়, নাইজিয়া থমাস নামের মেয়েটা জনসন কাউন্টি কমিউনিটি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষে পড়েন। সন্তান জন্মের সময়ই ফাইনাল পরীক্ষার তারিখ পড়ে।

 

 

তার আগ দিয়েই হাসপাতালে ভর্তি হতে হয় তাকে। হাতপাতালে বিছানায় শোয়া অবস্থায় তার একটি ছবি পোস্ট করা হয়েছে। তার চারপাশে বই ছড়ানো। পড়াশোনা করছেন, ল্যাপটপে ব্যস্ত অবস্থায় দেখা যায় তাকে। তার মা ছবিটি তুলেছেন।

 

 

পরে তিনি লিখেছেন, এই সময়টা আমার জীবনের সত্যিকার পরীক্ষা। মা হওয়ার পরীক্ষা। আবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষা। তার ছবিটা টুইটারে ওঠার পর দেখতে দেখতে ২৭ হাজার রিটুইট হয়ে গেছে।

 

পড়াশোনে বা এই পরীক্ষাটা আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমি চাইনি এই অবস্থায় মা হই আমি। মানুষ আসলে আমাকে এভাবে দেখতেও চাইবে না। কারণ, তুমি কিশোরী মা। তোমার বয়সস কম। একই দৃষ্টিতে আমার মা-ও এ ছবিটা তুলেছেন।

অবশেষে মা হয়েছেন এই পরীক্ষার্থী। তবে অনেক যন্ত্রণায় ভুগতে হয়েছে তাকে। প্রচুর রক্তক্ষরণ ঘটেছে। জন্মদানের পর তিনি ঝুঁকির মুখে ছিলেন। অচেতন ছিলেন অনেকটা সময়। পাশে বাবা ছিলেন সব সময়। মেয়েটি এও জানিয়েছেন যে, বাচ্চা ভালো আছে তার। আর জিপিএ ৩.৫ নিয়ে দারুণ ফলাফল করেছেন পরীক্ষায়।
সূত্র : ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস