প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :হাইকোর্ট এলাকায় পুলিশের প্রিজন ভ্যানে হামলা ও ছাত্রদলের দুই কর্মীকে ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনায় মঙ্গলবার দিবাগত মধ্যরাতে পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। এর মধ্যে একটি মামলা বিশেষ ক্ষমতা আইনে করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৬৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার দিবাগত মধ্যরাতে শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রহিদুল ইসলাম ও এসআই চম্পক বাদী হয়ে এ পৃথক দুটি মামলা করেন।

 

রমনা থানার ওসি মইনুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, মঙ্গলবার রাতে তার থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বিশেষ ক্ষমতা আইনে।

মামলা দুটিতে সরকারি কাজে বাধা দেয়া, পুলিশের ওপর হামলা, রাষ্ট্রীয় সম্পদ বিনষ্ট, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিঘ্নসহ বেশ কয়েকটি ধারা জুড়ে দেয়া হয়েছে।

 

মামলায় বিএনপির শীর্ষ অনেক নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে ৭০০-৮০০ অজ্ঞাতনামাকে আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রিজন ভ্যানে হামলার পর শাহবাগ ও রমনা থানাসহ আশেপাশের এলাকায় অভিযান চালিয়ে আটক ৬৯ জনও রয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর হাতিরঝিল এলাকা থেকে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে আটক করা হয় বলে জানান ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।

এদিকে বিএনপির পক্ষ থেকে জানানো হয়, রাত সোয়া ১০টায় গুলশানের পুলিশ প্লাজার সামনে থেকে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) পরিচয়ে তুলে নেয়া হয়েছে।

রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বৈঠক শেষ করে গাড়িতে করে তিনি পুরান ঢাকার বাসায় ফিরছিলেন। গুলশানের পুলিশ প্লাজার সামনে তার গাড়ি থামিয়ে তাকে তুলে নেয়া হয়।

এদিকে মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবুর ইস্কাটনের বাসায় পুলিশ অভিযান চালিয়েছে বলে দাবি করেছে বিএনপি। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে বিষয়টি রাত ১টা পর্যন্ত স্বীকার করেনি।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল জানান, রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে দলের বৈঠক ছিল। বৈঠকের পর গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বাসার উদ্দেশে রওনা দেন। গুলশানের পুলিশ প্লাজার সামনে এলে রাত সোয়া ১০টার দিকে ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে মিন্টো রোডের কার্যালয়ে নিয়ে যায়।

মঙ্গলবার দুপুরের পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আদালত থেকে ফেরার সময় বিএনপি কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছিল। তাতে বিএনপি কর্মীদের পিটুনিতে আহত হন কয়েক পুলিশ সদস্য। এ সময় পুলিশের প্রিজনভ্যানে হামলা চালিয়ে দুজন বিএনপি নেতাকে তারা ছিনিয়ে নেয়।