প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট : বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করেছেন, যখন ইচ্ছা হচ্ছে বাসা থেকে, রাস্তা থেকে, হাটবাজার থেকে, দলীয় কার্যালয় থেকে বিএনপির নেতাকর্মীদের তুলে নিয়ে গিয়ে প্রথমে অস্বীকার করার পর দরকষাকষি শুরু হয়।

 

 

বলা হয়, বেশি টাকা দিলে হালকা মামলা দেয়া হবে, আর কম টাকা দিলে কঠিন মামলা দেয়া হবে। আর টাকা দিতে অক্ষম হলে শুরু হয় অমানবিক শারীরিক নির্যাতন। গতকাল শুক্রবার বিএনপির নয়াপল্টনস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন তিনি।

 

 

 

রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার নেতৃত্বাধীন কোয়ালিশন সরকারের সহযোগী জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। আর বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে জাল নথির ওপর ভিত্তি করে ভুয়া ও মিথ্যা মামলায় হয়রানির মাধ্যমে জুলুম করা হচ্ছে। সরকার পরিকল্পিতভাবে ভিন্ন কৌশলে আরেকটি বিতর্কিত নির্বাচনের দিকে এগুচ্ছে।

 

 

 

রিজভী অভিযোগ করে বলেন, গত চার দিনে ২৭৫ জন বিএনপির নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এখনো নেতাকর্মীদের বাসায় অভিযান চলছে অথচ প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্রের কথা বলেন। নির্বাহী কমিটির কর্মকর্তা ও সদস্যরা নয়াপল্টনস্থ দলের কার্যালয়ে পরিচয়পত্র সংগ্রহ করতে এসে অনেকেই গ্রেফতার হচ্ছেন। বাসা থেকেও নেতাকর্মীরা গ্রেপ্তার হচ্ছেন।