প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :   শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, বিএনপির কোন ধরণের অন্যায় আব্দারে নয়, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী। আজ বুধবার রাতে চাঁদপুর সার্কিট হাউজে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিল্পমন্ত্রী এ কথা বলেন।

 

মন্ত্রী বলেন, দলের প্রতিটি নেতাকর্মী এই সরকারের নানা উন্নয়নের চিত্র সাধারণ মানুষের সামনে তুলে ধরতে হবে। কারণ, দেশের সকল সোনালী অর্জন জননেত্রী শেখ হাসিনার আমলেই হয়েছে।

 

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি, আওয়ামী লীগ জাতীয় পরিষদ সদস্য ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভূঁইয়া এমপি, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নাসিরউদ্দিন আহম্মদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম দুলাল, যুব মহিলা লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি পারভীন খায়ের।

 

এর আগে দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে শিল্পমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু আমাদেরকে স্বাধীন দেশ দিয়েছেন। আর তাঁর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের সীমানা নির্ধারণ করে দিয়েছেন।

 

তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা আজ বিশ্বে মানবতার নেত্রী হিসেবে পরিচিত। ১১ লক্ষে রোহিঙ্গা মুসলমানদেরকে এদেশে আশ্রয় দিয়ে মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। এসব কথা নিয়ে আজ আমরা প্রতিটি মানুষের ঘরে ঘরে যেতে পারবো। আওয়ামী লীগ সরকার যে উন্নয়ন করছে আগামী নির্বাচনে জনগণকে আওয়ামী লীগের কাছে ফিরে আসতে হবে।

 

জনগণই আওয়ামী লীগকে নির্বাচিত করবে। অন্য কোনো দলের কাছে যাওয়ার সুযোগ নেই।

 

তিনি বলেন, জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে ফসলি জমি কমে যাওয়ার পরও দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। কোন মানুষ না খেয়ে থাকছে না। তিনি দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, দলে মতবিরোধ থাকবেই। কিন্তু আন্দোলন-সংগ্রাম ও নির্বাচনের সময় আমরা সকলেই এক ও অভিন্ন হয়ে কাজ করবো। এটাই আওয়ামী লীগের নীতি হওয়া উচিত।

 

মন্ত্রী বলেন, আজকে দেশে উন্নয়নের যে চেহারা সারাবিশ্ব তা দেখছে। তারই একটি উদাহরণ হলো- আগে আমাদের বাজেট নির্ভর করতো বিশ্বব্যাংকের সাহায্যের উপর। আজকে আমরা তাদেরকে বাদ দিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণ করছি। এরকম উন্নয়নের উদাহরণের শেষ নেই। এর আগে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু চাঁদপুরে পৌঁছালে প্রশাসনের পক্ষে তাকে স্বাগত জানান, জেলা প্রশাসক আব্দুস সবুর মন্ডল। পরে রাত সাড়ে ১১টায় শিল্পমন্ত্রী ঝালকাঠির উদ্দেশ্যে নৌপথে চাঁদপুর ত্যাগ করেন।