প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :   চাঁদপুরের মতলব উত্তরে সহপাঠী ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্পের আঘাতে মাদ্রাসার এক শিক্ষার্থী প্রাণ হারিয়েছে। ঘটনার শিকার জালাল উদ্দিন (১৬) উপজেলার ফরাজিকান্দি ইউনিয়নের হাজীপুর নুরিয়া কাদেরিয়া মাদরাসার ছাত্র।

 

মঙ্গলবার সকালে থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদনেত্মর জন্য চাঁদপুর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। ময়না তদন্ত শেষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পারিবারিক গোরস্তানে নিহত জালাল উদ্দিনের লাশ দাফন করা হয়েছে।

 

 

মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ আবু সাঈদ জানান, নিহত জালাল উদ্দিন হাজীপুর গ্রামের মৃত মফিজুল ইসলামের ছেলে। জালাল উদ্দিন পবিত্র কোরআনের ২২ পারা পর্যনত্ম মুখস্ত করেছিলেন।

 

 

প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সোমবার উত্তর হাজিপুর গ্রামের মৃত লিয়াকত হোসেন গাজী ওরফে লেকু গাজীর ছেলে একই মাদ্রাসার ছাত্র রিয়াদ হোসেন মাদরাসা কর্তৃপক্ষের নিষেধ উপেক্ষা করে মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন। বিষয়টি জালাল উদ্দিন শিক্ষকদের জানান। এরই জের ধরে রিয়াদ ও জালাল উদ্দিনের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এরই এক পর্যায়ে রিয়াদ সহপাঠী জালাল উদ্দিনের মাথায় ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্প দিয়ে আঘাত করে।

 

 

ঘটনাটি সোমবার সকালে ঘটলেও মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ জসিমউদ্দিন ওই দিন দুপুরে চাঁদপুরে নিয়ে যান।পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ভোর রাতে জালাল উদ্দিন মারা যান। পরে স্বজনরা গ্রামের বাড়িতে তার লাশ নিয়ে যান।

 

 

মতলব উত্তর থানার উপ-পরিদর্শক মোসত্মফা কামাল জানান, মঙ্গলবার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল মধ্য হাজীপুর গ্রামের বাড়ি থেকে জালাল উদ্দিনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদনেত্মর জন্য চাঁদপুরে পাঠানো হয়। তবে তিনি দাবি করেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত রিয়াদ পলাতক রয়েছে।

 

 

মতলব উত্তর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আলমগীর হোসেন জানান, জালাল উদ্দিনকে হত্যায় করায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। আসামিকে আটক করার জন্য পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।