প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :     তারল্য সংকটের কারণে শেয়ারবাজারে ধস হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ডিএসই ব্রোকারর্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি (ডিবিএ) মোস্তাক আহমেদ সাদেক।

 

মঙ্গলবার (১৩ মার্চ) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বোর্ড রুমে শেয়ারবাজারে পতনের কারন অনুসন্ধানে জরুরী বৈঠকে বসে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ), ডিএসই ব্রোকারর্স অ্যাসোসিয়েশন (ডিবিএ), ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন, লিস্টেড কোম্পানি অ্যাসোসিয়েশন, লিজিং কোম্পানি অ্যাসোসিয়েশন এবং ডিএসইর শীর্ষ কর্মকর্তারা। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন ডিবিএ’র সভাপতি

 

মোস্তাক আহমেদ সাদেক কলেন, দেশের সব ব্যাংকে তারল্য সমান নয়। আমাদের কিছু ব্যাংকে তারল্য সংকট রয়েছে সেটা মানছি। আবার কিছু ব্যাংকে প্রচুর তারল্যও রয়েছে। এতো তারল্য থাকার পরও বাংলাদেশ ব্যাংকের কঠোর নিয়মের কারনে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করছে না ওইসব ব্যাংক। তাদের ইচ্ছা থাকার শর্তেও শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করছে না। ফলে শেয়ারবাজার তারল্য সংকটে রয়েছে। তাই শেয়ারবাজারের উন্নয়ন স্বার্থে বাংলাদেশ ব্যাংকে কিছু বিষয়ে নমনীয় হলে পতন থাকবে না বলে মনে করেন।

 

প্রতিষ্ঠানগুলো ভয়ে আছে এমন উক্তি করে তিনি বলেন, এক্সপোজারের কারণে শেয়ারবাজারে তারা বিনিয়োগ করছে না। বিনিয়োগ করলেই ওই প্রতিষ্ঠানের নানা সমস্যা হয়। আবার দেশের ব্যাংকের সুদের হার বেড়েছে। সুদের হার একক থেকে দুই ডিজিটে ঘরে চলে এসেছে। তাই মুনাফার আশায় নিরাপদ বিনিয়োগ লক্ষে ব্যাংকে অর্থ রাখছে। ফলে শেয়ারবাজার থেকে অনেকেই অর্থ তুলে নিচ্ছে।

 

বাংলাদেশ ব্যাংকের অসহযোগিতার কারণে শেয়ারবাজারে স্থিতি আসছে না। ব্যাংকের এডিআর জটিলতায় শেয়ারবাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। সংগঠন থেকে অনেকবার বাংলাদেশ ব্যাংককে অনুরোধ করেছি যে এক্সপ্লোজার লিমিট কস্ট প্রাইজের ভিত্তিতে গণনা করতে। বাংলাদেশ ব্যাংক তা কর্নপাত না করে মার্কেট প্রাইজের ভিত্তিতে গণনা করছে। আবার বাংলাদেশ ব্যাংক এডিআর রেশিও সমন্বয় করলেও তার প্রভাব শেয়ারবাজারে পড়ছে না।

 

তিনি আরও বলেন, শেয়ারবাজারের দু:সময়ে সাপোর্ট দিতে আইসিবি শক্তিশালী অবস্থানে থাকে। বর্তমানে সেই আইসিবিকে আর্থিক ভাবে দুর্বল করে রাখা হয়েছে। কোন ফান্ড দেয়া হচ্ছে না তাকে। ফলে শেয়ারবাজারে তাদের বিনিয়োগ বৃত্ত কমে নিষ্ক্রয় হয়ে যাচ্ছে।

 

এসময় বিএমবিএ’র সভাপতি নাসির উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক জেগে ঘুমাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রীও বাংলাদেশ ব্যাংককে শেয়ারবাজারের উন্নয়নে সহযোগিতা করার জন্য বলেছেন। বাংলাদেশ ব্যাংক তা মানছে না।

 

সরকারি ব্যাংকগুলোর কাছে প্রচুর তারল্য রয়েছে এমন উক্তি করে নাসির উদ্দিন বলেন, তারা তাদের সাবসিডিয়ারির মাধ্যমে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ বাড়াতে পারে। কিন্তু তারা তাও করছে না।ফলে তারল্য সংকটে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে এক ধরনের আস্থা সংকট দেখা দিয়েছে।