প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :     সৌদি থেকে স্ত্রীর মোবাইলে- দাম্পত্য কলহের জের ধরে দুই শিশু সন্তানের মুখে বিষ দিয়ে রিনা আক্তার নামে এক প্রবাসীর স্ত্রী আত্মহত্যা করেছেন। শুক্রবার রাতে মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলায় রামাকান্তপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আফরিন আক্তার (৫) ও আব্দুল মমিন (৩) নামে দুই শিশু ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

রীনার মামা মুহাম্মদ রজনু মিয়া জানান, বিয়ের পর বিদেশ গিয়ে আব্দুল আজিজের পরিবর্তন হয়। রীনাকে তালাক দেবে বলে প্রায়ই হুমকি দিতো। মোবাইলে মেয়েদের ছবি পাঠিয়ে বলতো এদের বিয়ে করবে। বলতো, ছেলে-মেয়ে নিয়ে বাবার বাড়ি চলে যাও।

শ্বশুরবাড়ির লোকজনও রীনাকে মারধর করতো। ছেলেকে আবার ভালো জায়গায় বিয়ে করাবে বলে রীনাকে বাবার বাড়ি চলে যেতো বলতো। মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন সইতে না পেরে দুই সন্তানকে বিষ খাইয়ে আত্মহত্যা করেছে রীনা।

তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন রীনার শ্বশুর আবুবকর সিদ্দিক। তিনি বলেন, ছেলের সঙ্গে বউয়ের কি হয়েছে তা আমি জানি না। আমি বাড়ির বাইরে আছি।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ওই গ্রামের আবুবকর সিদ্দিকের ছেলে আব্দুল আজিজের সঙ্গে একই উপজেলার ভাকুম গ্রামের বাচ্চু মিয়ার মেয়ে রীনার বিয়ে হয় প্রায় ৮ বছর আগে।

তাদের ঘরে দুই সন্তান রয়েছে। প্রায় ১২ বছর ধরে আব্দুল আজিজ সৌদিআরবে থাকেন। নানা কারণে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায় কলহ লেগেই থাকতো। আজিজের মা-বাবাও রীনাকে মানসিকভাবে নির্যাতন করতেন।

দাম্পত্য কলহের জের ধরে শুক্রবার সন্ধ্যায় দুই শিশুর মুখে বিষ দেন মা রীনা। পরে তিনি নিজেও বিষপান করেন। বিষয়টি টের পেলে শ্বশুরবাড়ির লোকজন ও প্রতিবেশীরা দুই সন্তানসহ রীনাকে সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

পরে চিকিৎসকরা রীনা আক্তারকে মৃত ঘোষণা করেন। সেইসঙ্গে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতেই দুই শিশুকে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তি করেন।

সিংগাইর থানা পুলিশের ওসি খোন্দকার ইমাম হোসেন জানান, নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সন্তান দুটি শঙ্কামুক্ত বলে পরিবার জানিয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।