প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :  নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী বাজারের করিমপুর রোড এলাকায় এক প্রতিবন্ধী শিশুকে (৮) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে পারভেজ (৩০) নামের এক বাসচালকের বিরুদ্ধে।

 

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চৌমুহনী বাজারের করিমপুর রোডে  অবস্থিত আনন্দ বাসস্ট্যান্ডে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

 

শিশুটিকে উদ্ধার নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ধর্ষক পারভেজ চৌমুহনীর করিমপুর এলাকার বাসিন্দা। সে নোয়াখালী-লক্ষ্মীপুর রোড়ের যাত্রীবাহী বাস আনন্দ সার্ভিস পরিবহনের চালক।

 

স্থানীয়রা জানায়, প্রতিবন্ধী শিশুটিকে নিয়ে তার মা করিমপুর রোডের রূপসা সিনেমা হলের পাশে সেলিমের বাসায় ভাড়া থাকেন। তিনি ওই এলাকার বিভিন্ন বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করেন। মঙ্গলবার বিকেলে শিশুটিকে বাসায় রেখে তিনি কাজে বের হন। সন্ধ্যায় রূপসা সিনেমা হলের বিপরীত পাশে অবস্থিত আনন্দ বাসস্ট্যান্ডে আহত অবস্থায় প্রতিবন্ধী শিশুর নিম্নাঙ্গে রক্তরক্ষণ হচ্ছিল। বিষয়টি দেখে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে। একপর্যায়ে শিশুটি বাসচালক পারভেজকে দেখে কাঁদতে থাকে।

 

বিষয়টি টের পেয়ে দ্রুত পালিয়ে যায় পারভেজ। পরে স্থানীয়রা শিশুটিকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

 

চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মোস্তাক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। পারভেজ পালিয়ে গেছে। তবে তাকে আটক করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এ ব্যাপারে মেডিক্যাল রিপোর্ট ও লিখিত অভিযোগ পেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের গাইনি বিভাগের চিকিৎসক এ এস এম সায়মুন জানান, শিশুটির রক্তক্ষরণ হয়েছে। তবে পরীক্ষা ছাড়া ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলা যাবে না। বেগমগঞ্জ থানার ওসি মো. ফিরোজ হোসেন মোল্লা জানান, এ ঘটনায় থানায় শিশুটির মা আনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে ধর্ষণের মামলা করেছে। আসামিকে ধরার জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।