প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :     গ্যাস সংকটে চট্টগ্রাম অঞ্চলে ব্যবসা-বাণিজ্যে দীর্ঘদিন ধরেই স্থবিরতা চলছে। তবে আমদানি হয়ে আসা তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস বা এলএনজি ঘিরে বড় স্বপ্ন দেখছেন চট্টগ্রামভিত্তিক শিল্প উদ্যোক্তারা। আগামী এপ্রিলে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর মে মাসে চট্টগ্রামে অগ্রাধিকার দিয়ে এই গ্যাস শিল্প-কারখানায় সংযোগ দেওয়া হবে।

 

এই অবস্থায় এলএনজি আমদানি ঘিরে চট্টগ্রামে বিনিয়োগে দীর্ঘদিনের স্থবিরতা কাটিয়ে বড় স্বপ্ন দেখছেন শিল্প উদ্যোক্তারা। তাঁদের কেউ কারখানা সম্প্রসারণ করছেন, আবার কেউ নতুন শিল্প স্থাপনের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করেছেন।  এরই মধ্যে প্রায় আড়াই শ উদ্যোক্তা এলএনজি সংযোগ নিতে আবেদন করেছে।

এলএনজি আসাকে সামনে রেখে কারখানা সম্প্রসারণ করছেন রিজেন্ট টেক্সটাইলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সালমান হাবিব। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এলএনজি আমদানি ঘিরেই আমাদের হাজার কোটি টাকার বিশাল প্রকল্প বাস্তবায়ন ও সম্প্রসারণ কাজ চলছে। নিটওয়্যার, স্পিনিং, গার্মেন্ট ও টেক্সটাইল খাতের সব কারখানার জ্বালানি হচ্ছে এই গ্যাসনির্ভর। গ্যাস না থাকায় চাহিদা থাকা সত্ত্বেও আমরা অনেক বছর এই সম্প্রসারণ কাজ শুরু করতে পারিনি। গ্যাস আসা নিশ্চিত হওয়ার পর এখন পুরোদমে কাজ চলছে।’

এলএনজি গ্যাসের যে প্রস্তাবিত দর দেওয়া হয়েছে সেটি এখন বেশি, এটা বিবেচনা করে যৌক্তিক পর্যায়ে আনার পরামর্শ দেন তিনি।

গ্যাস সংযোগে ১২ বছর আগে আবেদন করে রেখেছিল চট্টগ্রামভিত্তিক এসটেক গ্রুপ। গ্যাসভিত্তিক নিজস্ব বিদ্যুৎকেন্দ্র বা ক্যাপটিভ পাওয়ার  দিয়ে একটি প্লাস্টিক প্যাকেজিং সামগ্রী চালানোর ইচ্ছা ছিল তাদের। এখন এলএনজি পাওয়ার আশায় আমেরিকা থেকে জেনারেটর আমদানির ঋণপত্র খুলে রেখেছে, এপ্রিলের শেষ নাগাদ সেটি চট্টগ্রামে পৌঁছবে। জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার ও চট্টগ্রাম চেম্বারের সাবেক সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আলী আহমেদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমার বিশেষায়িত কারখানাটি এখন ডিজেল দিয়ে উৎপাদিত বিদ্যুতে চলছে। এলএনজি পেলে আমরা ২ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করব। সেটি দিয়ে জুনের প্রথমভাগে কারখানা চলবে।’

এই ধরনের অনেক শিল্প উদ্যোক্তা কারখানা সম্প্রসারণ ও নতুন কারখানা গড়ে তুলছেন এলএনজি আমদানি ঘিরে।

চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম মনে করেন, এলএনজি আমদানি চট্টগ্রামে শিল্প ও বিনিয়োগে নতুন দুয়ার খুলে দেবে। ১০ বছর ধরে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী ও আবাসিক গ্রাহকরা গ্যাস সংকটে আছেন, যাঁরা গ্যাস পাচ্ছেন তাঁরাও গ্যাসের চাপ সংকটে ছিলেন। চট্টগ্রামভিত্তিক শিল্পমালিকরা এই অবস্থা থেকে মুক্তি পাবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুরদর্শী সিদ্ধান্ত ও কঠোর তদারকির কারণে নির্দিষ্ট সময়েই আমরা এই গ্যাস পাচ্ছি উল্লেখ করে তিনি বলেন, নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সংযোগের নিশ্চয়তা পেলে চট্টগ্রামে অন্তত পাঁচশত শিল্প গ্রাহকের আবেদন পড়বে। চট্টগ্রাম ঘিরে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের উন্নয়ন সম্ভাবনা কাজে লাগাতে এলএনজির দর অবশ্যই প্রতিযোগিতামূলক হতে হবে।