প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :     আল্লাহকে যার অস্বীকার করেছে, আল্লাহর বিধানকে যার অমান্য করেছে তাদের শাস্তি প্রদান করার জন্য এ জাহান্নাম সৃষ্টি করা হয়েছে। জাহান্নামের খাদ্য ও পানী সবই হবে জাহান্নামিদের শাস্তির অংশ। জাহান্নাম সবসময় জ্বলমান। এটা কখনো দুর্বল হবে না, কখনো নিভবে যাবে না। এর অধিবাসীদের হবে আজাবো স্থায়ী। তারা সেখান থেকে সাহায্য চাইবে, কিন্তু কেহ সাহায্যকারী থাকবে না। জাহান্নামিরা আজাবের চোটে চিৎকার করবে, কাঁদবে এবং খেতে চাইবে। তখন তাদের সামনে এমন খাবার উপস্থিত করা হবে, যার কারণে তাদের আজাব আরো বেড়ে যাবে। তাদের যন্ত্রণাদায়ক খাবার প্রদান করা হবে। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা জাহান্নামিদের খাবারের উল্লেখ করেছেন।

 

হামিম: জাহান্নামের আগুনে ফোটানো গরম পানিকে বলা হয় হামিম। এই পানি পান করার পর পেটের ভেতর সবকিছু গলে যাবে। আঁতুড়ি তরল পদার্থের মতো গড়িয়ে পড়বে এবং চামড়া ঝলসে যাবে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘এবং যাদের পান করতে দেয়া হবে ফুটন্ত পানি যা তাদের নাড়িভুঁড়ি ছিন্নবিচ্ছিন্ন করে দেবে।’ (সূরা মুহাম্মদ: ১৫)।

 

গাসসাক: গাসসাক বলা হয় অধিক ঠাণ্ডা পানি, যা অতিরিক্ত ঠাণ্ডা হওয়ার কারণে পানযোগ্য নয়। এ মর্মে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেন, ‘এ হচ্ছে হামিম ও গাসসাক, অতঃপর তারা একে আস্বাদন করুক।’ (সূরা সাদ: ৫৭)।

 

সদিদ: পরকালে কাফেরদের স্থায়ী ঠিকানা হবে জাহান্নাম। এতে তারা অনন্তকাল জ্বলতে থাকবে। তাদের দেহ হতে গোশত ও চামড়া বিগলিত হয়ে গড়িয়ে পড়বে। সেটা অত্যন্ত দুর্গন্ধ ও ঘন হবে। এ দুর্গন্ধময় পুঁজকে সদিদ বলা হয়। এ সদিদই জাহান্নামিদের খাবার হবে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেন, ‘তাদের প্রত্যেকের জন্য পরিণামে জাহান্নাম রয়েছে এবং পান করানো হবে গলিত পুঁজ, যা সে অতি কষ্টে একেক ঢোঁক করে গলাধঃকরণ করবে এবং তা গলাধঃকরণ করা প্রায় সহজ হবে না। সর্বদিক থেকে তার কাছে আসবে মৃত্যু যন্ত্রণা; কিন্তু তার মৃত্যু ঘটবে না এবং এরপর কঠোর শাস্তি ভোগ করতে থাকবে।’ (সূরা ইবরাহিম : ১৬-১৭)।

 

গাদের পানি: জাহান্নামিরা আজাব ভোগ করে তৃষ্ণার্ত হয়ে পড়বে। তারা সেই সময় পানি চাইবে। তখন তাদের এই পানি দেয়া হবে। তা পান করা মাত্রই মুখমন্ডল ঝলসে যাবে। এ পানি জাহান্নামিদের বাধ্য হয়ে পান করতে হবে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘আমি জালেমদের জন্য প্রস্তুত রেখেছি অগ্নি, যার বেষ্টনী তাদের পরিবেষ্টন করে থাকবে। তারা পানি চাইলে তাদের দেয়া হবে গলিত ধাতুর ন্যায় পানি, যা তাদের মুখমন্ডল দগ্ধ করবে, এটা নিকৃষ্ট পানীয়! আর জাহান্নামের কত নিকৃষ্ট আশ্রয়।’ (সূরা কাহফ : ২৯)।

 

দরি: জাহান্নামিরা যে সময় খানা চাইবে, তখন তাদের সামনে দরি নামক এ খাদ্য উপস্থিত করা হবে। এ দরি এক ধরনের দুর্গন্ধময় বিষাক্ত কাঁটা। এর দ্বারা দোজখিদের ক্ষুধা নিবারণ হবে না। এরপরও দরিকে খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করতে হবে জাহান্নামিদের। এ মর্মে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘দরি (কাঁটার ঝাড়) ছাড়া তাদের জন্য অন্য কোনো খাদ্য নেই। সেটি তাদের মোটাতাজাও করবে না এবং ক্ষুধা নিবারণের কাজও দেবে না।’ (সূরা গাশিয়া : ৬-৭)।

 

গিসলিন: জাহান্নামিদের দেহ হতে প্রবাহিত রক্ত ও পুঁজের সমষ্টিকে বলা হয় গিসলিন। এ গিসলিন হবে তাদের নিকৃষ্ট খাবার। এ ধরনের পচা খাবার দ্বারা ক্ষুধা মেটাতে চাইলেও ক্ষুধা মিটবে না। কারণ, এটাও জাহান্নামিদের একটি কঠিন আজাব। এ প্রসঙ্গে পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘অতএব, আজকের দিনে এখানে তার কোনো সুহৃদ নেই। আর কোনো খাদ্য নেই ক্ষত-নিঃসৃত গিসলিন ছাড়া। অপরাধী ছাড়া কেউ এটা খাবে না।’ (সূরা হাক্কা : ৩৫-৩৭)।

 

জাক্কুম: এক ধরনের বিষধর বৃক্ষের ফল, যা জাহান্নামের তলদেশে উৎপন্ন হয় এটা বলা হয় জাক্কুম। এই ফল অত্যন্ত ভয়ংকর। এর দ্বারা জাহান্নামিদের শারীরিক কোনো ফায়দা হবে না। বরং জাক্কুম ফল খাওয়া মাত্রই জাহান্নামিদের শারীরিক যন্ত্রণা আরো বেড়ে যাবে। এ মর্মে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘নিশ্চয় জাক্কুম গাছ পাপীর খাদ্য হবে, গলিত তামার মতো পেটে ফুটতে থাকবে। যে রকম ফোটে পানি। একে ধরো এবং টেনে নিয়ে যাও জাহান্নামের মধ্যস্থলে, তারপর তার মাথার ওপর ফুটন্ত পানির আজাব ঢেলে দাও, স্বাদ গ্রহণ করো, তুমি তো সম্মানিত, সম্ভ্রান্ত। এ সম্পর্কে তোমরা সন্দেহে পতিত ছিলে।’ (সূরা দুখান : ৪৩-৫০)।

 

আল্লাহ তায়ালা আরো বলেন, ‘এটি একটি গাছ, যা জাহান্নামের তলদেশ থেকে উৎপন্ন হয়। এর গুচ্ছ যেন শয়তানের মাথা। কাফেররা এ থেকে খাবে এবং উদর পূর্ণ করবে এর দ্বারা।’ (সূরা সাফফাত : ৬৪-৬৬)।