প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :     জাতীয় দলের হয়ে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী; আর বার্সেলোনায় ছিলেন জিগারি বন্ধু। ছিলেন মানে এখনও আছেন; নেইমার বার্সেলোনা ছাড়ার পরেও আর্জেন্টাইন ফুটবল জাদুকরের সঙ্গে তার বন্ধুত্ব অটুট আছে। এ পর্যন্ত পাঁচটি ব্যলন ডি’অর জিতেছেন মেসি। নেইমার একটিও নয়। কিন্তু মেসি-রোনালদোর সঙ্গে তার নামটাও উচ্চারিত হয়। কিন্তু মেসির সঙ্গে এই দারুণ বন্ধুত্বের শুরুটা কীভাবে হলো? ব্রাজিল সুপারস্টার নিজেই শোনালেন সেই গল্প।

 

ব্রাজিলিয়ান টিভি নেটওয়ার্ক গ্লোবোকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে নেইমার এই বন্ধুত্বের শুরুর গল্প বলেছেন। তখন ২০১৩ সাল। সান্তোস ছেড়ে সদ্যই বার্সেলোনায় এসেছেন ২১ বছর বয়সী নেইমার। ক্যাম্প ন্যু এর নামীদামী সব তারকার ভীড়ে কিছুতেই মানিয়ে নিতে পারছিলেন না। মাঠের খেলা তার নামের প্রতি সুবিচার করত না। এমন সময় একটি ম্যাচের প্রথমার্ধে খুব বাজে পারফর্মেন্স করেছিলেন নেইমার। বিরতির সময় তার কাঁদো কাঁদো অবস্থা দেখে এগিয়ে আসেন ফুটবল জাদুকর।

বাকীটা শুনুন নেইমারের মুখে, ‘আমার মন খারাপ দেখে মেসি আমার সাথে কথা বলতে শুরু করে। সে বলে, হতাশ হয়ে পড়ছ কেন? তোমাকে তোমার মতোই হতে হবে। তোমার নিজস্ব ফুটবলটা খেলে যাও। ভয় পেয়ো না।’

নেইমার আরও বলেন, ‘শুনতে খারাপ লাগলেও সত্যি যে, এত বেশি তারকাদের সাথে খেলা আপনাকে পিছিয়ে দেবে। আপনাকে বেশ  লজ্জাতেও ফেলবে। কিন্তু তার (মেসি) সাথে কথা বলার পর আমি এগুলো ভাবা বন্ধ করি এবং নিজের খেলাটা খেলে যাই। এর ফলেই আমার আত্মবিশ্বাস ফিরতে শুরু করে। আমার সকল চিন্তার অবসান হয় এবং শান্তি খুঁজে পাই। তখন থেকেই তার সঙ্গে দারুণ বন্ধুত্বের শুরু হয়, যা চিরদিনের।’