প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :       ফি বছর আপনি বুড়ো হবেন। কিন্তু আপনার ব্রেন তরুণ থাকবে- এমন অঘটন আজ পর্যন্ত ঘটেছে কোথাও?

 

বিজ্ঞান বলছে, এই দুনিয়ায় ভাই সবই হয়! এবং এই সবটাই হচ্ছে ইন্টারনেটের কলাণে।

সমীক্ষা বলছে, যত বেশিক্ষণ নেট নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করবেন….আপনার ব্রেন ততটাই ক্ষুরধার হবে। আপনি ভুলবেন কম।

তার মানে ‘বয়স গড়িয়ে প্রায় ষাটের কোঠায়, এই বুড়ো বয়সে নতুন করে কী নেট শিখতে বসব!’ – বাড়ির কুচোদের আবদারে এমন অজুহাত যদি আপনার মুখ দিয়ে বেরিয়েই থাকে, জেনে রাখুন মস্ত ভুল বলেছেন।

কথাটা বিশ্বাস করতে কষ্ট হলে কিচ্ছু করার নেই। কারণ, গত আট বছর ধরে টানা ব্রিটেনের ৬,৪৪২ জন ৫০ থেকে ৮৯ বয়সীদের উপর ‘ইংলিশ লনজিটিউডিনাল স্টাডি অফ এজিং’ এই সমীক্ষা চালিয়েছে। সেই সমীক্ষায় সম্প্রতি জানা গিয়েছে এমনটাই।

সমীক্ষায় বলা হয়েছে, ডিজিটাল কাজকম্মো যেমন, ই-মেল দেওয়া-নেওয়া বা ওয়েব ব্রাউজিংয়ের মতো কাজ নিয়মিত করলে স্মৃতিশক্তি বাড়ে। এই থিওরি বিশেষ করে ফিফটি প্লাস ও তারও বেশি বয়সীদের উপর অনেক বেশি কার্যকরী।

রিসার্চে আরও জানা গিয়েছে, ডিজিটাল লিটারেসি বা প্রযুক্তিবিদ্যা মস্তিষ্ক এবং মস্তিষ্কের মধ্যে থাকা কগনিটিভ অঞ্চলের কাজ করার ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয় অনেকটাই, এবং একইসঙ্গে মস্তিষ্কের কগনিটিভ অঞ্চলের কর্মক্ষমতা কমে আসাকে রোধ করে।

শুধু কি তাই? স্টাডি আরও বলছে, শিক্ষা, উচ্চ আয় আর প্রযুক্তি বিদ্যা- এই তিনে মিলে নাকি ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, অবসাদের মতো রোগ-বালাইকে ঠেকিয়ে রাখতে পারে অনেকদিন। আর যে রেটে ডিমেনশিয়া ছড়িয়ে পড়ছে সিনিয়ার সিটিজেনদের মধ্যে, তাকে প্রতিরোধ করতে গেলেও কদিন পরে শরণ নিতে হবে ইন্টারনেট সার্ফিংয়ের।