প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :     আসন্ন দিনগুলোতে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া সৃষ্টি হতে পারে। এই কারণে প্রতিকূল পরিস্থিতিতে পড়তে পারেন বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা। এমনটাই অভিমত জাতিসংঘের অভিবাসী সংস্থা-আইওএম-এর। এমন অবস্থায় রোহিঙ্গাদের জন্য ক্যাম্প তৈরি করার প্রচেষ্টায় সহায়তা যোগাচ্ছে আইওএম।

 

আইওএম জানায়, ২০টি প্যারা ডেভলপমেন্ট কমিটির (পিডিসি) অধীনে টেকনাফের ২৪টি প্রকল্পকে সমর্থন করছে আইওএম। সেখানে প্রতিটিতে ছয়জন শরণার্থী এবং পাঁচজন স্থানীয় লোক থাকবে। প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে সেতু নির্মাণ, প্রবেশ পথ, ড্রেন, ঢাল সুরক্ষা কাজ প্রভৃতি।

সংস্থাটি জানায়, এই প্রকল্পগুলোর কাজ প্রধানত ঘনবসতিপূর্ণ উচিপ্রাং,লেদা, নয়াপাড়া ও শ্যামলাপুর ক্যাম্পে করা হবে। এর মধ্যে উচিপ্রাং ক্যাম্পে ২১ হাজার ৩১০ জনের বেশি, নয়াপাড়ায় ২৪ হাজার ৭৯০ জন, শ্যামলাপুরে ২২ হাজার ৭০০ জন এবং লেদায় প্রায় ৯ হাজার ৩২০ জন রোহিঙ্গা বসবাস করছে। সর্বমোট প্রায় আড়াই লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী মূল শিবির উখিয়া ক্যাম্পের বাইরে বাস করছে।

আইওএম এবং অংশীদার সংস্থাগুলো ঘূর্ণিঝড় ও বৃষ্টিতে ঠুনকো আশ্রয়কেন্দ্রগুলো রোহিঙ্গাদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ বলে স্বীকার করেছে। তারা আশ্রয়কেন্দ্রগুলো ভালোভাবে নির্মাণ ও উন্নত করার জন্য একযোগে কাজ করছে।

টেকনাফে ১৫ হাজারের বেশি আশ্রয়কেন্দ্র আপগ্রেড প্রয়োজন বলে চিহ্নিত করা হয়েছে যেখানে ৭৮ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা বাস করছেন।
এর মধ্যে ১৩ হাজার ২০৪টি আশ্রয়কেন্দ্র আপগ্রেড করার লক্ষ্য স্থির করেছে আইওএম।ওইখানে প্রায় ৬৬ হাজার রোহিঙ্গা বসবাস করছেন।