প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :     সংসারে অশান্তি? বউ এর সঙ্গে রাগারাগি? মুখ দেখাদেখি বন্ধ? তা হলে মুখ ব্যাজার না করে অফিস ফেরত গিন্নির জন্য নিয়ে যান একগোছা সতেজ ল্যাভেন্ডার। নীলচে ফুলের মিষ্টি গন্ধে রাগ তো গলবেই, বরং দেখবেন ‘সরি’ বলে আলিঙ্গন করবে বউ নিজেই।

 

ম্যাজিক মনে হচ্ছে, না মনে করছেন বাজে কথা? আসলে এ হচ্ছে ল্যাভেন্ডারের গুণ। সাম্প্রতিক এক সমীক্ষাই জানাচ্ছে সে কথা। ল্যাভেন্ডার সুবাস নাকে গেলে তরতাজা হয়ে মন। শুধু তাই নয়, বাড়ে বিশ্বাস। দৃঢ় হয় সম্পর্ক।

সেলারো নামে এক মহিলা ও তার পুরুষ সঙ্গী এক সমীক্ষা চালিয়ে দেখেছেন, ল্যাভেন্ডারের ঘ্রাণ মানুষের মধ্যে ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। দু’জন মানুষের মধ্যে বিশ্বাস বাড়াতে সাহায্য করে।

এমনিতেই অ্যারোমাথেরাপি সম্পর্কে মানুষ অনেক সচেতন হয়েছেন। অ্যারোমাথেরাপিস্টরা প্রমাণও দিয়েছেন কীভাবে বিভিন্ন্ সুগন্ধি, নির্যাস দিয়ে চিকিৎসা করা যায়।

সেলারোর কথায়, এই ফুলের সুবাস দিয়ে অনেক ভাল কাজ হতে পারে। মান-অভিমান, কোনও কারণে সম্পর্কের টানাপোড়েন, হয়তো সহজ হয়ে যেতে পারে মিষ্টি চুম্বন, উষ্ণ আলিঙ্গন ও ল্যাভেন্ডারের ব্যবহারে। আর কথায় আছে, বিন্দু বিন্দু সিন্ধু।

তা হলে, একগোছা ল্যাভেন্ডার দিয়ে মিটিয়ে নিন বন্ধুর সঙ্গে পুরনো ঝগড়া কিম্বা কাস্টমারের সঙ্গে মন কষাকষি। তা হলে, ল্যাভেন্ডারের গন্ধে সুবাসিত হয়ে উঠবে সামাজিক সম্পর্কগুলোও।