প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :     আর মাত্র ২২ বছরের মধ্যে পারমাণবিক যুদ্ধ বেধে যাবে। তেমনটাই দাবি আমেরিকান থিংক ট্যাঙ্ক র‌্যান্ড কর্পোরেশনের।

 

আন্তর্জাতিক নানা ঘটনার বিচার বিশ্লেষণ করে যুক্তরাষ্ট্রের ওই থিংক ট্যাঙ্ক জানিয়েছেন, ২০৪০ সালের মধ্যে একটা নিউক্লিয়ার যুদ্ধ বেধে যেতে পারে।

তাদের মতে, যেভাবে ড্রোনের মতো স্বয়ংক্রিয় টেকনোলজির ব্যবহার বাড়ছে সেখান থেকেই এই আশঙ্কা তারা করছেন। তারা তাদের রিপোর্টে জানিয়েছেন, এভাবে ড্রোনের হামলা বাড়তে বাড়তে একটা সময় একে অপরকে নিউক্লিয়ার বোম ছুড়ে মারবে দেশগুলো।

সম্প্রতি ‘হাউ মাইট আর্টিফিয়াল ইন্টেলিজেন্স এফেক্ট দ্য রিস্ক অব নিউক্লিয়ার ওয়ার?’ নামে একটি পেপারে সেই বিশ্লেষণ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ওই থিংক ট্যাঙ্ক।

সংস্থাটির গবেষকরা জানিয়েছেন, যে জিনিস যত সহজ মনে হয় সেখান থেকেই নানা বিপত্তির শুরু হতে পারে এবং একটা জটিল আকার ধারণ করে নিতে পারে।

তাদের মতে, প্রতিহিংসার বশে নিউক্লিয়ার অস্ত্রের প্রয়োগ আরও বাড়বে। এখন বিশ্বের অনেক দেশের হাতে নিউক্লিয়ার অস্ত্র রয়েছে। ফলে আগামী দিনে দেশগুলোর মধ্যে কূটনৈতিক স্থিতাবস্থা বজায় রাখা কঠিন হয়ে পড়বে। পারমাণবিক যুদ্ধের ঝুঁকি কমাতে তাই প্রত্যেকটি দেশকে উদ্যোগী হতে হবে।