প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :        সাকিব এতো ভালো খেলেও- প্রথমে ব্যাট হাতে সাকিব আল হাসান দলকে দিয়েছেন পথের দিশা। এরপর বল হাতেও জ্বলে উঠেছেন। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের ব্যাটে-বলে ভর করেই সোমবার রাতে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ মাঠ ছাড়ল জয় নিয়েই।

 

 

 

 

টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করা হায়দরাবাদের সংগ্রহ ছিল সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৪৬ রান। জবাবে দুর্দান্ত বোলিংয়ে বিরাট কোহলিদের ১৪১ রানেই আটকে দিয়েছে সাকিবরা। পাঁচ রানের জয়ের সঙ্গে হায়দরাবাদ ধরে রাখল পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থানও।

 

 

 

 

এদিন ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই সাকিবের হাতে বল তুলে দিয়েছিলে অধিনায়ক কেইন উইলিয়ামসন। প্রথম ওভারে এসেই পার্থিব প্যাটেলকে ফিরিয়েছেন বাঁহাতি অলরাউন্ডার। পরের ওভারে বিপক্ষ অধিনায়ক বিরাট কোহলি অবশ্য সাকিবের উপর দিয়ে বইয়ে দিয়েছিলেন ঝড়, নিয়েছিলেন ১৫ রান।

 

 

 

 

তবে এরপর ফিরে এসে সেই কোহলিকেই তুলে নিয়েছেন সাকিব। বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যানকে ইউসুফ পাঠানের ক্যাচ বানিয়ে সাজঘরের পথে দেখিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশি টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক।

 

 

 

 

সব মিলিয়ে চার ওভারে ৩৬ রান দিয়ে সাকিব ঝুলিতে পুরেছেন দলের হয়ে সর্বোচ্চ দুই উইকেট। এর আগে ব্যাট হাতেও করেছিলেন ৩২ বলে ৩৫ রান।

 

 

 

 

সাকিব ছাড়া হায়দরাবাদ দলের বাকি বোলাররাও ছিলেন দারুণ উজ্জ্বল। বোলিং করা বাকি চার বোলারের সবাই নিয়েছেন একটি করে উইকেট। সাকিবের এতো ভালো পারফর্ম্যান্সের পরেও ম্যাচসেরার পুরস্কারটা উঠেছে দলপতি উইলিয়ামসনের হাতে।

 

 

 

 

 

এ কারনের ব্যাখ্যা হিসেবে রয়েছে, উইলিয়ামসন দলের এমন সময় রান করেছে যখন হায়দ্রাবাদের পরপর তিন উইকেট পরে গিয়ে ছিলো।

 

 

 

 

 

আর অন্য দিকে সাকিব ২ উইকেট নিলেও ৪ ওভারে ৩৬ রান দিয়েছে। তাই ম্যাচ সেরা হিসেবে কেন উইলিয়ামসন কে বেছে নেওয়া হয়েছে।