খাগড়াছড়ি জেলা সদরের ইসলামপুর এলাকায় জেলা কারাগার অরক্ষিত সিমানা জায়গা দখলের অভিযোগে পৌর ৫ নং ওযার্ড কাউন্সিলর ও জেলারের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। কারাগারের সীমানায় অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ কাজে বাধা দিতে গিয়ে দখলদারদের হামলায় জেলার আবু ফাতাহ আহত হয়।

 

 

মঙ্গলাবার সকাল ১১টায় এ ঘটনা ঘটে। হামলা ও মারধরের ঘটনায় একে অপরকে মারধরের অভিযোগ করলেও দায় স্বীকার করেনি কেউ। এ ঘটনায় ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মজিদকে দীর্ঘ সময় জেলা কারাগারে আটক রাখার পর পুলিশ থানায় নিয়ে যায়। এ নিয়ে খাগড়াছড়িতে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

 

 

জেল পুলিশ ও জেল সুপার আবু ফাতাহ্ কর্তৃক পিবিসিপির কেন্দ্রীয় সভাপতি ও কাউন্সিলরকে হামলা মারধর ও গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশে করেছে পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ ও বৃহত্তর পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ।আহত আবু ফাতাহ জানান, গত সোমবার রাতে খাগড়াছড়ি কারাগারে সীমানায় অবৈধ ভাবে অনুপ্রবেশ করে স্থাপনা নির্মাণ করে স্থানীয় কাউন্সিলর আব্দুল মজিদের লোকজন। মঙ্গলবার সকালে কারা পুলিশ নিয়ে তাদের সরে যেতে বললে কাউন্সিলর আব্দুল মজিদসহ দখলদাররা হামলা চালায়।

 

 

হামলার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত আবু ফাতাহকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। এসময় কারা পুলিশ ও থানা পুলিশ মিলে অভিযুক্ত কাউন্সিলরকে আটক করে। অন্যদিকে, আটককৃত আব্দুল মজিদের নি:শর্ত মুক্তি ও তার ওপর হামলার দায়ে জেল সুপার ও জেলারের শাস্তি দাবি করে খাগড়াছড়ি সদরে বিক্ষোভ মিছিল করে পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদ ও বৃহত্তর পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ।

 

 

অন্যদিকে এ ঘটনাকে জায়গা দখল নিয়ে অনাকাঙ্খীত উল্লেখ করে আব্দুল মজিদ এর ব্যক্তিগত সৃষ্ট বিষয়ে বৃহত্তর পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ ও পার্বত্য অধিকার ফোরামের কোন সম্পৃক্ততা নেই জানিয়ে ব্যক্তি স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সংগঠনের নাম ব্যবহার বির্তকিত করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায় সাংগঠনি সম্পাদক পারভেজ আলম। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান।বৃহত্তর পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ এ ঘটনার সাথে কোন ভাবে সম্পৃক্ত নয় বলে যৌথ বিবৃতি উল্লেখ করেন,বৃহত্তর পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো: মাঈন উদ্দীন ও সাধারণ সম্পাদক এস এম মাসুম রানা।

 

 

খাগড়াছড়ি সদর থানার অফিসার ইন-চার্জ(ওসি) সাহাদাত হোসেন টিটো বলেন, সরকারি ভূমিতে অনুপ্রবেশ ও সরকারি কাজে বাধা দেয়ার দায়ে জেলার আবু ফাতাহ বাদি হয়ে কাউন্সিলর আব্দুল মজিদসহ অজ্ঞাত ২০ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন। আটককৃত আব্দুল মজিদকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।