প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :           ত্বকের যত্ন বলতে আমরা শুধু বুঝি সুন্দর দাগহীন মসৃণ একটি মুখ৷ আর যারা আরও একটু সচেতন, তারা মাঝে মাঝে হাত-পা বা গলারও একটু চর্চা করেন। মুখে ব্রণ হলে আমরা এটা ওটা লাগাই। তাই, রূপচর্চার প্রধান অঙ্গ হল মুখ।

 

 

 

কেবল পিঠটা এই যত্ন থেকে বঞ্চিত থাকে। অথচ আমাদের শরীরের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ এটি। আমাদের পিঠে অয়েল গ্ল্যান্ড থাকার কারণে বলিরেখার তেমন সমস্যা হয় না।

 

 

 

 

এই গরমে ওঠানো গলার পোশাক পরা সম্ভব হয় না। তাই, কামিজ বা শাড়ি যাই পরুন না কেন পিঠের খানিকটা অংশ খোলা থেকেই যায়।

 

 

 

 

সারাদিনের ঘোরাঘুরিতে রোদের অত্যাচারে শরীরের খোলা অংশগুলো হয়ে পড়ে বিবর্ণ। পিঠের ত্বক রোদে পুড়ে কালো ছাপ পড়ে যায়, পুরো পিঠ খসখসে হয়।ফলে কোনও অনুষ্ঠানে যাওয়ার সময় বড় গলার ব্লাউজ পরতে চাইলেও তা হয় না।

 

 

 

 

সামনেই উৎসব। তাই, এখন থেকেই যদি যত্ন নিতে পারেন তবে, আপনি মনের আনন্দে ঝকঝকে মসৃণ পিঠের লাভ ওঠাতে পারবেন৷ পছন্দসই ড্রেস পড়তে পারবেন বিনা দ্বিধায়।

 

 

 

 

কী করবেন ঝকঝকে পিঠ পেতে?

 

স্নানের সময় চেষ্টা করবেন লম্বা হাতলের ব্রাশ ব্যবহার করতে। কারণ, লম্বা হাতলের ব্রাশ ভাল স্ক্রাবের কাজ করে। আর এর কারণে আপনার রোমকূপের মুখ থাকবে পরিষ্কার। স্নানের পর আটা ও দুধের মিশ্রণে এক ভাগ গ্লিসারিন ও তিন ভাগ গোলাপজল মিশিয়ে লাগাবেন।

 

 

 

 

 

আমরা বেশির ভাগ সময়ই ফেসিয়াল স্ক্রাব করি, ফেসিয়াল স্ক্রাবের মতো আপনি বডি স্ক্রাবও শুরু করে দিন দেখবেন এর ফলে দারুণ উপকার পেয়েছেন।

 

 

 

 

আপনি চালের গুঁড়োর সঙ্গে দই মিলিয়ে বডি স্ক্রাব তৈরি করতে পারেন। বডি স্ক্রাব বানানোর পর লম্বা হাতলের ব্রাশে মিশ্রণটা লাগিয়ে পিঠে ব্রাশ করুন দেখবেন আপনার ত্বক উজ্জ্বল ও পরিষ্কার হবে।

 

 

 

ত্বককে মসৃণ রাখার জন্য বাটিতে লেবুর রস নিন এবং তার মধ্যে এক গ্লাস দুধ, এক চা চামচ গ্লিসারিন মিশিয়ে ভাল করে নেড়ে নিন। দুধ ফুটিয়ে নিবেন। মিশ্রণটা আধা ঘণ্টা রাখুন। এরপর বডি স্ক্রাব হিসেবে লাগান এবং আধা ঘণ্টা পর ধুয়ে ফেলুন।

 

 

 

আপনার হাতে যদি সময় কম থাকে, তাহলে দইয়ের সঙ্গে বেসন এবং হলুদ মিশিয়ে ঘন পেস্ট বানিয়ে স্নান করার কমপক্ষে দু’ঘণ্টা আগে লাগিয়ে নিন।

 

 

 

 

ব্যাক ম্যাসাজের সময় আপনাকে প্রথমে যেটা খেয়াল রাখতে হবে তা হলো আপনার ম্যাসাজার যেন দক্ষ হয়। অনেক সময় কোমরে ব্যথা থাকা অবস্থাই আপনারা ম্যাসাজ করে থাকেন এটা ঠিক না।

 

 

 

 

 

এক্ষেত্রে আপনাকে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। ব্যাক ম্যাসাজের জন্য বাজারে বিভিন্ন ধরনের বিশেষ অয়েল বিক্রি হয়। তবে, বেবি অয়েলও ব্যবহার করতে পারেন।

 

 

 

 

 

পিঠের ত্বকের আলাদা যত্ন:

প্রতিদিন স্নানের সময় পিঠের ত্বক ভাল করে পরিষ্কার করুন। স্নানের আগে পিঠে একটু অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করে নিন। রোজ করলে কালো দাগ পড়বে না।

 

 

 

ত্বকের রোদে পোড়া ভাব দূর করতে চন্দন বাটা এক টেবিল চামচ, টমেটোর রস এক চা চামচ, শশার রস এক চা চামচ একসঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে পিঠে লাগিয়ে রাখুন ১৫ মিনিট।

 

 

 

টক দই, লেবুর রস ও আটা মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে পিঠে লাগান। সপ্তাহে দু’দিন ব্যবহার করুন। অ্যালোভেরার রস নিয়মিত দাগের ওপর লাগালে দাগ কমবে।

 

 

 

 

রোদে বের হওয়ার আগে ত্বকের খোলা অংশে সানস্ক্রিন লাগান এবং সঙ্গে ছাতা ব্যবহার করুন।
পিঠ খুব তৈলাক্ত হলে অবশ্যই অয়েল কন্ট্রোল লোশন ব্যবহার করুন।