প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :          লজ্জাজনক হারের পর- বুধবারের ইডেন দেখল কলকাতা নাইট রাইডার্সের আত্মসমর্পণ। ১০২ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরে মাথা নীচু করেই মাঠ ছাড়লেন কিং খান। নাইটদের উৎসাহ দিতে তিনিও যে এদিন হাজির ছিলেন ইডেনে।

 

 

 

 

ম্যাচ শেষ হওয়ার কয়েক মিনিটের মধ্যেই টুইটারে বিস্ফোরণ শাহরুখ খানের। বাদশার টুইট, ‘খেলায় হারজিত থাকবেই। কিন্তু মূল ব্যাপার হল ইচ্ছাশক্তি। যেটা দলের খেলায় ছিল না। দর্শকদের কাছে আমি ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি’।*

 

 

 

 

বুধবার নাইটদের ঘাতক হয়ে যিনি আবির্ভূত হলেন, তিনি ঝাড়খন্ডের ১৯ বছর বয়সী উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান ঈশান কিষাণ। নামলেন মুম্বাই ইনিংসের দশম ওভারে।

 

 

 

 

মুম্বাইয়ের স্কোর তখন ৬২/২। ফিরলেন পনেরোতম ওভারের মাথায়। কিন্তু ততক্ষণে ম্যাচের রং পাল্টে গিয়েছে। এই ৬ ওভারে মুম্বাই তুলল ৮২ রান। যার মধ্যে ঈশান একাই ২১ বলে ৬২! ১৪তম ওভারে কুলদীপ যাদবকে পরপর চারটি ছয় হাঁকালেন। যে কলকাতার সেরা অস্ত্র মনে করা হচ্ছিল স্পিনারদের, সেই স্পিনত্রয়ী ১১ ওভারে দিলেন ১১৮ রান!

 

 

 

 

 

প্রায় বিনা লড়াইয়ে নাইটদের এই আত্মসমর্পণ। ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়। দ্বিতীয় বলেই ফিরলেন সুনীল নারাইন। চতুর্থ ওভারের মাথায় রবিন উথাপ্পার সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে যেভাবে ক্রিস লিন ফিরলেন, তা পাড়া ক্রিকেটে চলতে পারে! আন্দ্রে রাসেলও টিঁকলেন মাত্র চার বল। দশ ওভার যেতে না যেতেই ছয় উইকেট পড়ে গেল।

 

 

 

 

 

টস জিতে এদিন ফের তাড়া করার রাস্তাতেই হেঁটেছিলেন কার্তিক। ২০১৩ সালের পর ইডেনে রান তাড়া করে ১৫ বারের মধ্যে কলকাতা হেরেছে মাত্র একবার।

 

 

 

 

প্রতিপক্ষের নাম? মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স! বুধবারও শাপমুক্তি ঘটল না। বদলা তো দূরের কথা। মুম্বাইয়ের কাছে পরপর হেরে ফের প্লে-অফের রাস্তা দুর্গম করে ফেলল নাইটরা। বাকি তিন ম্যাচের তিনটিই এখন কার্যত মরণবাঁচনে পরিণত হয়ে গেল।