প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :           গুণী নির্মাতা ঋত্বিক ঘটককে তেড়ে এসে মেরেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের আরেক তারকা অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। দৈনিক সংবাদ প্রতিদিনে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সে ঘটনার বিশদ বর্ণনাও দিয়েছেন তিনি। ‘মেঘে ঢাকা তারা’ খ্যাত ঋত্বিক ঘটককে ওই সময়কার প্রযোজকদের দালালও বলেছেন সৌমিত্র।

 

 

 

 

 

 

পশ্চিমবঙ্গের সিনেমাপাড়ায় যখন ইন্ডাস্ট্রি স্ট্রাইক চলছিল, তখন একদিন কলকাতার তথ্যকেন্দ্র দপ্তরে মৃণাল সেন, অজিত লাহিড়ীদের সঙ্গে ছিলেন সৌমিত্র। সৌমিত্র বলেন, ‘হঠাৎ ঋত্বিক এসে হাজির।

 

 

 

 

 

দেখলাম শুরুর বিকেলেই মদে পুরো চুর। এসেই ধর্মঘটিদের গালাগাল শুরু করল। সত্যজিৎ রায়কে নিয়ে যখন শুরু করল, তখনো আমি চুপ ছিলাম। সত্যজিৎ এমন মহীরুহ যে কে কী বলল তাতে তাঁর কিছু আসে-যায় না।

 

 

 

 

 

কিন্তু আমি তো চোখের সামনে বসে আমাকে অশ্রাব্য গালাগাল করার রাইট কাউকে দিইনি। সহ্য করব কেন?…বেঞ্চে বসে ছিল ঋত্বিক। সপাটে একটা ঘুষি মারি। পড়েই যেত। মৃণালদা বাঁচিয়ে দিলেন।’

 

 

 

 

দীর্ঘ ওই সাক্ষাৎকারে সৌমিত্র নিজেকে ঋত্বিকের সিনেমার ভক্ত বলে বারবার দাবি করলেও ঋত্বিককে নিয়ে সত্যজিৎ রায়ের প্রশংসাকে বলেছেন বাড়াবাড়ি। আর এ নিয়েও চটেছে কলকাতার ঋত্বিক অনুরাগীরা (বিশেষ করে যাদবপুর ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিজ)।

 

 

 

 

 

সৌমিত্রকে একহাত দেখে নিতে তুবড়ি ছোটাচ্ছে তারাও। তাদের কথা হলো, ঋত্বিকপত্নীর প্রয়াণের এক সপ্তাহ না পেরোতেই সৌমিত্র ধরে নিয়েছেন, ঋত্বিককে নিয়ে এখন যা খুশি মন্তব্য করা যায়।