প্রথমবার্তা ডেস্ক রিপোর্ট :            সিচুয়ান এয়ারলাইন্সের যাত্রীবাহী একটি বিমান চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমের চংকিং থেকে যাচ্ছিল তিব্বতের লাসা অভিমুখে।৩২ হাজার ফুট উপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার সময় হঠাৎ করেই তার সামনের কাঁচটি ভেঙে গেলে সেটিকে জরুরি ভিত্তিতে অবতরণ করানো হয়।

 

 

 

 

 

ঘটনার সময় বিমানটি ছিল মাঝ আকাশে, ৩২ হাজার ফুট উপরে। যাত্রীদেরকে সকালের খাবার সরবরাহ করা হচ্ছিল। হঠাৎ করেই সেসময় বিমানটি ২৪ হাজার ফুট উপরে নেমে আসে। বাইরের বাতাসের চাপ বিমানের ভেতরে পাইলটের একজন সহকারীর শরীরের প্রায় অর্ধেকটা বাইরে টেনে নিয়ে যাচ্ছিলো।

 

 

 

 

 

 

বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের তরফে জানানো হয়েছে, সহকারী পাইলট তার হাতে চোট পেয়েছেন। তার মুখের বিভিন্ন জায়গায় কেটে গেছে। বিমানটি হুট করে নিচে নামতে থাকায় আরো একজন ক্রু সদস্য তার কোমরে চোট পেয়েছেন।

 

 

 

 

 

পরে পাইলট ১১৯জন যাত্রীকে নিয়ে বিমানটিকে দক্ষতার সাথে চেংডু শহরের বিমান বন্দরের রানওয়েতে নামিয়ে আনতে সক্ষম হন। যাত্রীদের অনেককে পরে একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

পাইলট লিউ চুয়ানজিয়ান বলেন, মাঝ আকাশে উড়ন্ত অবস্থায় ককপিটের ভেতরে হঠাৎ প্রচণ্ড জোরে শব্দ হতে থাকে।

 

 

 

 

 

দেখলাম সামনের কাঁচটিতে ফাটল ধরেছে। তখন জোরে একটা শব্দ হয়। তারপর দেখি আমার কো-পাইলট অর্ধেকটা বাইরে চলে গেছে।সৌভাগ্যবশত, কো-পাইলটের সিটবেল্ট বাঁধা ছিলো। তখন তাকে টেনে ককপিটের ভেতরে নিয়ে আসা হয়।

 

 

 

 

 

তিনি বলেন, ককপিটের ভেতরে যা কিছু ছিলো তার সবই বাতাসে ভাসতে থাকে। আমি রেডিওতে কিছু শুনতে পাচ্ছিলাম না। বিমানটি এতো জোরে কাঁপতে লাগলো যে আমি কোন মিটারও পড়তে পারছিলাম না।

 

 

 

 

 

এক যাত্রী জানান, আমরা জানতাম না কি হয়েছে। কিন্তু আমরা আতঙ্কিত হয়ে পড়ি। অক্সিজেনের মাস্ক নিচে নেমে আসে। কয়েক সেকেন্ডের জন্যে মনে হচ্ছিল যে বিমানটি হঠাৎ করেই নিচের দিকে পড়ে যাচ্ছে। কিছুক্ষণ পর সেটা স্থির হয়ে যায়।

 

 

 

 

 

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রে উড়ন্ত একটি বিমানের জানালা ভেঙে গেলে ভেতরের একজন যাত্রী বাইরে দিকে চলে যেতে থাকে। তখন তাকে টেনে ধরে রাখা হয়। পরে তার মৃত্যু হয়।

 

 

 

 

 

 

বিমানের সামনের কাঁচ ভেঙে যাওয়া খুব একটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। বজ্রপাত কিম্বা কোন পাখির সাথে আঘাত লেগেও এরকম হতে পারে। তবে পুরো উইন্ডস্ক্রিন উড়ে যাওয়ার ঘটনা খুবই বিরল।